শাকিব খানের বিরুদ্ধে এবার ১০০ কোটির মানহানি মামলা

30 April 2023, 6:29:19

ফের মানহানির মামলা হলো ঢালিউডের শীর্ষ নায়ক শাকিব খানের বিরুদ্ধে। বাদী সেই অস্ট্রেলিয়ান প্রবাসী বাঙালি প্রযোজক রহমত উল্লাহ। তিনি এবার কিং খানের বিরুদ্ধে করলেন ১০০ কোটি টাকার মানহানির মামলা।

গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রযোজক রহমত উল্লাহর আইনজীবী ড. মো. তবারক হোসেন ভূঁইয়া। তিনি জানিয়েছেন, রবিবার সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকার প্রথম যুগ্ম জেলা জজ আদালতে শাকিব খানের বিরুদ্ধে ১০০ কোটি টাকার মানহানির মামলাটি করা হয়েছে।

এর আগে গত ১৩ এপ্রিল ঢাকার সিএমএম কোর্টে মো. রশিদুল আলমের আদালতে শাকিব খানের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৪৯৯/৫০০/৫০১ ধারায় মানহানির প্রথম মামলাটি করেন প্রযোজক রহমত উল্লাহ। সেটির তদন্তভার পিবিআইকে দিয়েছেন আদালত।

এর আগে গণমাধ্যমের কাছে রহমত উল্লাহকে বাটপার-প্রতারক বলায় এবং তাকে নিয়ে নানা আপত্তিকর মন্তব্যের জেরে রহমত উল্লাহর পক্ষে শাকিব খানকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠান তার আইনজীবী ড. মো. তবারক হোসেন ভূঁইয়া।

এদিকে আইনি পদক্ষেপ নিয়েছেন শাকিব খানও। প্রযোজক রহমত উল্লাহর নামে মানহানির মামলা করতে গত ১৮ মার্চ রাতে তিনি যান গুলশান থানায়। সেখানে মামলা না নেয়ায় পরের দিন ডিবি কার্যালয়ে গিয়ে লিখিত অভিযোগ জানান।

পরবর্তীতে চাঁদা দাবির অভিযোগ এনে প্রযোজক রহমত উল্লাহর বিরুদ্ধে গত ২৩ মার্চ ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আরাফাতুল রাকিবের আদালতে মামলা করেন শাকিব খান। বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে ২৬ এপ্রিল আসামিকে হাজির হওয়ার জন্য সমন জারি করেন আদালত।

ওই মামলায় আদালতে হাজিরা দিয়ে জামিন পেয়েছেন রহমত উল্লাহ। পরবর্তীতে তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ঢাকা ট্রাইব্যুনালে আরেকটি মামলা করেন শাকিব খান।

সেই মামলার শুনানি শেষে ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক এএম জুলফিকার হায়েত শাকিব খানের জবানবন্দি রেকর্ড করেন, অভিযোগ আমলে নেন এবং পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন বা পিবিআইকে এ বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

এ প্রসঙ্গে প্রযোজক রহমত উল্লাহ বলেন, ‘আইনের প্রতি শতভাগ আমার আস্থা রয়েছে বলেই আমি অস্ট্রেলিয়া থেকে বাংলাদেশে এসেছি। শাকিব খানের করা একটি মিথ্যা মামলায় আদালত আমাকে জামিন দিয়েছেন। শাকিব খান আমার বিরুদ্ধে যেসব মিথ্যা গল্প তৈরি করেছে তা আইনিভাবেই আমি মোকাবিলা করব। তাই আমি এই মানহানি মামলাটি করেছি। আমার বিশ্বাস আমি সুবিচার পাব। আইনের প্রতি সেই আস্থা আমার আছে। আমার জায়গা থেকে আমি শতভাগ সৎ ও আত্মবিশ্বাসী।’

এ বিষয়ে জানতে শাকিব খানকে ফোন করে তাকে পাওয়া যায়নি।

গত ১৫ মার্চ এফডিসিতে গিয়ে প্রযোজক সমিতি, পরিচালক সমিতি, শিল্পী সমিতি ও ক্যামেরাম্যান সমিতি বরাবর শাকিব খানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন রহমত উল্লাহ। সেখানে তিনি কিং খানের নামে অসদাচরণ, মিথ্যা আশ্বাস ও সহ-নারী প্রযোজককে ধর্ষণের মতো গুরুতর অভিযোগের কথা উল্লেখ করেন।

রহমত উল্লাহর দাবি, নির্মিতব্য ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ (২০১৭) সিনেমায় অসদাচরণ, মিথ্যা আশ্বাস, ধর্ষণ (মামলা নং: ৬২৪৯৪৯৫৯) এবং পেশাগত অবহেলার মাধ্যমে চলচ্চিত্রটির ক্ষতি সাধন, চলচ্চিত্রের শুটিং সম্পন্ন করতে অথবা লগ্নিকৃত অর্থ ফিরিয়ে দিতে রাজি না হওয়ায় নিরুপায় হয়ে তিনি অভিযোগ করেছেন।

এদিকে নিজের নিরাপত্তার জন্য গত ২৫ এপ্রিল রাজধানীর আদাবর থানায় শাকিব খানের বিরুদ্ধে একটি সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করেছেন রহমত উল্লাহ।

যদিও শুরু থেকে নিজের বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগই অস্বীকার করে আসছেন শাকিব খান। তার দাবি, রহমত উল্লাহ ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ ছবির প্রযোজক নন। তিনি যেসব অভিযোগ তুলেছেন, সব মিথ্যা এবং বানোয়াট।

শাকিব খানের বিরুদ্ধে প্রযোজক রহমত উল্লাহর সবচেয়ে চর্চিত অভিযোগ, ২০১৭ সালে তিনি অস্ট্রেলিয়ায় ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ ছবির শুটিংয়ের সময় এক নারী সহ-প্রযোজককে ধর্ষণ করেন। সে সময় তার বিরুদ্ধে মামলা হয়, তিনি অস্ট্রেলিয়া পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারও হন। পরে প্রভাব খাটিয়ে জামিন পান।

এই অভিযোগের বিপক্ষে শাকিব খানের যুক্তি, তিনি যদি অপরাধী হতেন, তাহলে ২০১৮ সালে অস্ট্রেলিয়ায় ‘সুপার হিরো’ ছবির শুটিং করতে পারতেন না। তার বিরুদ্ধে যদি সত্যি কোনো মামলা থাকতো, তাহলে ছবির শুটিংয়ে অস্ট্রেলিয়া সরকার তাকে সহযোগিতাও করতো না।

প্রতিছবি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।