ADS

ADS
হোম / অর্থনীতি / বিস্তারিত
ADS

বিদায়ী অর্থবছরে প্রবাসী আয়ে রেকর্ড

5 July 2021, 9:23:20

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে দেশের অর্থনীতি যখন থমকে গেছে তখন প্রবাসী আয়ে তাতে প্রাণ ফিরেছে। সদ্যবিদায়ী অর্থবছরে দুই হাজার ৪৭৭ কোটি ৭৭ লাখ মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। যা টাকার হিসাবে দুই লাখ ১০ হাজার ৬১০ কোটি টাকার বেশি।

গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে এই সময়ে প্রবাসীরা পাঠিয়েছেন এক হাজার ৮২০ কোটি পাঁচ লাখ মার্কিন ডলার। শতাংশ হিসেবে ২০২০-২১ অর্থবছরে ৩৬ দশমিক ১০ শতাংশ রেমিট্যান্স বেশি এসেছে। অর্থবছরের হিসাবে একসঙ্গে এত পরিমাণ রেমিট্যান্স এর আগে দেশে আসেনি। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা গেছে।

অন্যদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের পরিমাণ (৩০ জুন পর্যন্ত) ৪৬ দশমিক ৪২ বিলিয়ন ডলার বা প্রায় চার হাজার ৬৪২ কোটি ডলার। যা টাকার হিসাবে তিন লাখ ৯৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। এই বিপুল বৈদেশিক মুদ্রা দিয়ে দেশের ১১ মাসের বেশি সময়ের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব।

দেশে বিপুল পরিমাণ রেমিট্যান্স আসাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন ব্যাংকখাত সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, সরকারের নগদ প্রণোদনার কারণে বৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স বেশি আসছে দেশে। পাশাপাশি আসন্ন কোরবানি ঈদকে (ঈদুল আজহা) সামনে রেখে প্রবাসীরা পরিবারের জন্য বাড়তি অর্থ পাঠাচ্ছেন, এসব কারণে রেমিট্যান্স বেশি এসেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন মতে, বিদায়ী ২০২০-২০২১ অর্থবছরের শেষ মাস জুনে ১৯৪ কোটি ডলার মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স দেশে পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। যা পুরো অর্থবছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি দেশে আসা রেমিট্যান্স। আর পুরো গত অর্থবছরের রেমিট্যান্সের পরিমাণ দাঁড়ায় দুই হাজার ৪৭৭ কোটি ৭৭ লাখ ডলারে বা দুই লাখ ১০ হাজার ৬১০ কোটি টাকা।

অর্থবছরের হিসাবে দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স এসেছে বিদায়ী অর্থবছরে। এর আগের অর্থবছরে (২০১৯-২০২০) এক হাজার ৮২০ কোটি ডলার বা ১৮ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স এসেছিলে দেশে। যা সে সময় পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি। আর তার আগের অর্থবছর (২০১৮-২০১৯) সময়ে রেমিট্যান্স এসেছিলে এক হাজার ৬৪২ কোটি ডলার।

গত অর্থবছরে বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশি প্রবাসীরা বেসরকারি ৩৯টি বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন এক হাজার ৮১৪ কোটি ৪০ লাখ ডলার। আর রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ছয় ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ৬১০ কোটি ৬২ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স, বিশেষায়িত একটি ব্যাংকে এসেছে ৪১ কোটি ৩০ লাখ ডলার এবং আট বিদেশি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ১১ কোটি ৪৫ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স।

২০২০-২০২১ অর্থবছরে একক ব্যাংক হিসাবে প্রতিবারের মতো এবারও সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ইসলামী ব্যাংক থেকে। বেসরকারি খাতের এ ব্যাংকটি থেকে মোট ৭৪৫ কোটি ৭৬ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স এসেছে। এরপরই রয়েছে সরকারি অগ্রণী ব্যাংক। রাষ্ট্রায়াত্ত্ব এ ব্যাংকটি থেকে ২৮২ কোটি ৩২ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স এসেছে। ডাচ বাংলা ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ২৪৯ কোটি ডলার। আর সোনালী ব্যাংকে এসেছে ১৫৩ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স।

এদিকে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের ওপর ভর করে মহামারির মধ্যে বাংলাদেশের বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয়ন ৪৬ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক অতিক্রম করেছে। গত মঙ্গলবার (২৯ জুন) দিনশেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪৬ দশমিক ৪২ বিলিয়ন ডলার, যা অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি। প্রতি মাসে চার বিলিয়ন ডলার হিসাবে দেশের এ রিজার্ভ দিয়ে ১১ মাসের বেশি সময়ের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব। আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী, একটি দেশের কাছে তিন মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর সমপরিমাণ বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ থাকতে হয়।

এদিকে বিদায়ী অর্থবছরে বিদেশে ৪১ বিলিয়ন ডলার পণ্য রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও ৩৮ দশমিক ৭৫৮ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি করতে পেরেছে। তবে গত অর্থবছরে রপ্তানির পরিমাণ ছিল ৩৩ দশমিক ৬৭৪ বিলিয়ন ডলার। সে হিসেবে বিদায়ী অর্থবছরে রপ্তানি বৃদ্ধি পেয়েছে ১৫ দশমিক ১০ শতাংশ।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ১ জুলাই থেকে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার। অর্থাৎ কোনো প্রবাসী ১০০ টাকা দেশে পাঠালে তার সঙ্গে আরও দুই টাকা যোগ করে মোট ১০২ টাকা পাচ্ছেন সুবিধাভোগী। এছাড়া ঈদ ও উৎসবে বিভিন্ন ব্যাংক ও মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান সরকারের প্রণোদনার সঙ্গে বাড়তি এক শতাংশ দেওয়ার অফার দিচ্ছে। এতে বৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স পাঠাতে উৎসাহী হচ্ছেন প্রবাসীরা।

ADS ADS

প্রতিছবি ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Comments: