১২ ডিসেম্বর চতুর্থ ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস-২০২০ উদ্যাপিত হবে

যদিও মানছি দূরত্ব, তবুও আছি সংযুক্ত এই প্রতিপাদ্য নিয়ে আগামী ১২ ডিসেম্বর ২০২০ দেশব্যাপী জেলা-উপজেলা এবং বিদেশস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসসমূহে উদযাপিত হবে ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস-২০২০। আজ শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) আগারগাঁওস্থ আইসিটি টাওয়ারে বিসিসি অডিটরিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এ তথ্য জানান।

দিবসটি উপলক্ষে ১২ ডিসেম্বর সকাল ৭:৩০ টায় আইসিটি বিভাগের উদ্যোগে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হবে। সকাল ১০:০০ টায় ৪র্থ ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০২০ এর উদ্বোধন ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান। বিকাল ০৩:০০ টায় ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০২০ প্রতিপাদ্য নির্ভর/ডিজিটাল বাংলাদেশ বিষয়ে জাতীয় সেমিনার। রাত ০৮:০০ টায় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ডিজিটাল বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়ার ১২ বছর উপলক্ষ্যে আন্তর্জাতিক সেমিনারের আয়োজন করা হবে। উক্ত সেমিনারে প্রধান অতিথি ও কি-নোট স্পিকার হিসেবে ডিজিটাল প্লাটফর্মে সংযুক্ত থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক মাননীয় উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ। ৮ ডিসেম্বর ২০২০ রাত ৮:০০ টায় দেশব্যাপী অনলাইন প্লাটফর্মের মাধ্যমে কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। কুইজ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীরা ২৭ নভেম্বর থেকে ৭ ডিসেম্বর ২০২০ এর মধ্যে www.quiz.digitalbangladesh.gov.bd এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। দিবসের মূল ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ভিডিও বার্তার মাধ্যমে উদ্বোধন করবেন রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ।

এছাড়াও দিবসটি উপলক্ষে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে ১২ বছরের সাফল্য ও অর্জন তুলে ধরে জাতীয় দৈনিক পত্রিকা সমূহে ক্রোড়পত্র প্রকাশ, বিভিন্ন ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় টকশো প্রচার, দিবসটির লক্ষ্য-উদ্দেশ্য তুলে ধরে বাংলা ও ইংরেজিতে দুইটি ওয়েবিনারের আয়োজন, কেন্দ্রীয়ভাবে অনলাইনে কুইজ প্রতিযোগিতা, দেশব্যাপি জেলা ও উপজেলায় ডিজিটাল বাংলাদেশের বিভিন্ন বিষয় ভিত্তিক রচনা, উপস্থিত বক্তৃতা, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, সভা সেমিনার, ওয়ার্কশপ এর আয়োজন করা, সচেতনতামূলক নাটিকা পরিবেশন, শ্রেষ্ঠ ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান ও উদ্যোক্তাদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হবে।

সংবাদসম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ শুধু আওয়ামীলীগের নয়, ১৭ কোটি মানুষের। প্রতিটি মানুষ ভোগ করছে ডিজিটাল বাংলাদেশের সুবিধা। ডিজিটাল প্রযুক্তি কল্যাণে দেশের জনগণ করোনা মহামারীতেও সংযুক্ত থাকতে পেরেছে। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, আদালত, সরবরাহ ব্যবস্থা এমনকি বিচারিক কাজ সচল রাখা সম্ভব হয়েছে। পরে প্রতিমন্ত্রী ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবসের লোগো এবং কুইজ প্রতিযোগিতার ওয়েব পোর্টাল আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন।