শুক্রবার হলেই ভোগান্তি বাড়ে পাটুরিয়া ঘাটে

শুক্রবার হলেই যেন পাটুরিয়া ঘাটে মানুষের ভোগান্তি বেড়ে যায় কয়েকগুণ। ছুটির দিনটিতে ঘাট এলাকায় বাড়ে বাড়তি যানবাহনের চাপ।

সরকারি ছুটি থাকায় বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) রাত থেকেই এ ঘাট এলাকায় যানবাহনের বাড়তি চাপ পড়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় দীর্ঘ হচ্ছে যানবাহনের সারি। সাধারণ পণ্যবাহী ট্রাকগুলো পাটুরিয়া ঘাট পার হতে অপেক্ষা করতে হচ্ছে ১৬ থেকে ২২ ঘন্টা। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পরিবহন বাস ও ছোট  গাড়ি পারাপার করা হলেও তাদেরকেও ঘাট এলাকায় ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে।  এতে করে সাধারণ যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের ভোগান্তি বেড়েছে।শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত পাটুরিয়া ঘাট এলাকা ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

ঢাকায় চাকরিরত লুৎফর রহমান নামের এক ব্যক্তি জানালেন, শুক্রবার ও শনিবার ছুটি থাকায় গ্রামের বাড়িতে যাওয়া হয় তার। তবে প্রতি সপ্তাহে পাটুরিয়া ঘাটে বাড়তি যানবাহনের চাপে আর বাড়ি যেতে ইচ্ছে করে না।

কুষ্টিয়াগামী প্রাইভেটকার চালক রিমন হোসেন জানান, সকাল ১১ টার দিকে ঘাট এলাকায় এসেছেন। ১২ টা পার হলেও এখনো ফেরিতে উঠতে পারেননি। ঘাট এলাকায় যানবাহনের বাড়তি চাপ থাকায় ফেরি পেতে দেরি হচ্ছে।

গোল্ডেন লাইন পরিবহনের যাত্রী তাসলিমা আক্তার বলেন, এমনিতেই প্রচন্ড গরম। তারমধ্যে ঘন্টার পর ঘন্টা ফেরির জন্য অপেক্ষা করায় ভোগান্তির শেষ নেই।

ট্রাক চালক হোসেন মিয়া বলেন, শুক্রবার এলেই ট্রাক চালকদের কপাল পুড়ে। যানবাহনের বাড়তি চাপ থাকায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ছোট গাড়ি ও বাস পারাপার করায় ট্রাকগুলো ঘাট এলাকায় ট্রাকগুলো আটকা পড়ে।

দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের ২১ টি জেলার যাতায়াতের অন্যতম মাধ্যম পাটুরিয়া দৌলতদিয়া নৌরুট। প্রতিদিন পাটুরিয়া ঘাট দিয়ে গড়ে দুই থেকে আড়াই হাজার যানবাহন পারাপার হয়ে থাকে। সরকারি ছুটি বা বিভিন্ন উৎসব এলেই এ ঘাট এলাকায় বাড়ে বাড়তি যানবাহনের চাপ ।

বাংলাদেশ নৌপরিবহন করপোরেশন ( বিআইডব্লিটিসি) আরিচা কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. সালাম হোসেন জানান, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ১৮টি ফেরি দিয়ে যানবাহন ও সাধারণ যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। সরকারি ছুটি থাকায় ঘাট এলাকায় যানবাহনের বাড়তি চাপ পড়েছে। ফলে ট্রাক চালক ও যাত্রীদের ভোগান্তি বেড়েছে।