২০০ টাকার নোট বাজারে আসছে ১৮ মার্চ

মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে বাজারে আসছে ১০০ টাকা মূল্যমান স্মারক নোট, ২০০ টাকা মূল্যমান প্রচলনযোগ্য স্মারক ব্যাংক নোট, ১০০ টাকা অভিহিত মূল্যের স্বর্ণ ও রৌপ্য স্মারক মুদ্রা। আগামী ১৮ মার্চ থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের মতিঝিল অফিসসহ অন্যান্য শাখা অফিসে পাওয়া যাবে এ স্মারক নোট।

গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিপার্টমেন্ট অব কমিউনিকেশনস অ্যান্ড পাবলিকেশনস থেকে এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

১০০ ভাগ কটন কাগজে মুদ্রিত এবং ইউভি কিউরিং ভার্নিশযুক্ত গভর্নর ফজলে কবির স্বাক্ষরিত ২০০ টাকা মূল্যমান স্মারক ব্যাংক নোটটির আকার নির্ধারণ করা হয়েছে ১৪৬ মিমি/৬৩ মিমি। স্মারক ব্যাংক নোটটির সম্মুখভাগের বাম পাশে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি এবং ব্যাকগ্রাউন্ডে নোটের মূল্যমান ২০০ ও ২০০ ডিজাইন হিসেবে মুদ্রিত রয়েছে।

এছাড়া নোটের উপরের অংশে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জন্মশতবর্ষ ১৯২০-২০২০, উপরে ডান দিকে কোনায় ইংরেজিতে মূল্যমান ২০০ ও ডান দিকে নিচে কোনায় বাংলায় মূল্যমান ২০০ লেখা রয়েছে। নোটের পেছন ভাগে ডান দিকে গ্রাম বাংলার বহমান নদী ও নদীর পাড়ের দৃশ্য (নদীর বুকে নৌকা, পাড়ে পাটক্ষেত ও নৌকায় পাট বোঝাইয়ের দৃশ্য) এবং এর বাম পাশে বঙ্গবন্ধুর যুক্তফ্রন্টের মন্ত্রী থাকাকালীন সময়ের একটি ছবি মুদ্রিত রয়েছে। নোটের উপরিভাগে ইংরেজিতে ‘Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman Centenary 1920-2020’ এবং নিচে বাম দিকে কোনায় ‘Birth Centenary’ লেখা রয়েছে। নোটের উপরে বাম কোণে বাংলায় মূল্যমান ২০০ ও ডান কোণে বাংলাদেশ ব্যাংকের মনোগ্রাম এবং নিচে ডান দিকে কোণে ইংরেজিতে মূল্যমান ২০০ লেখা রয়েছে।

আরও পড়ুন: ‘মুজিববর্ষে’ মোদির ঢাকা সফর নিশ্চিত করল দিল্লি

১০০ টাকা মূল্যমান স্মারক নোটটির জন্য পৃথকভাবে বাংলা ও ইংরেজি লিটারেচার সম্বলিত ফোল্ডার প্রস্তুত করা হয়েছে। ফোল্ডার ছাড়া শুধু খামসহ স্মারক নোটটির মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১০০ টাকা এবং ফোল্ডার ও খামসহ স্মারক নোটটির মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৫০ টাকা। এছাড়া স্বর্ণ স্মারক মুদ্রাটির মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে স্মারক বাক্সসহ ৫৩ হাজার টাকা এবং রৌপ্য স্মারক মুদ্রাটির মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে স্মারক বাক্সসহ ৩ হাজার ৫০০ টাকা।