কওমী মাদরাসা বন্ধ ঘোষণা

এবার কওমী মাদরাসাগুলোর শিক্ষা কার্যক্রম স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সম্মিলিত কওমি মাদরাসা শিক্ষা সংস্থা ‘আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’।

আজ মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর কাজলায় বেফাকুল মাদারিসিলি আরাবিয়ার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মুরুব্বিদের এক জরুরি বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় বলে জানা গেছে।

এরআগে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় গতকাল সোমবার দুপুরে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। এই বন্ধের ঘোষণায় স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সরকারি আলিয়া মাদরাসা আওতাভুক্ত হলেও স্বতন্ত্র বোর্ডের আওতাধীন কওমী মাদরাসাগুলোতে তখনও বন্ধ দেওয়া হয়নি। তবে আজ কাওমি মাদরাসা বন্ধ দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশের মাদরাসা শিক্ষাব্যবস্থা দুই ধারায় বিভক্ত— আলিয়া ও কওমী। চট্টগ্রামের সবচেয়ে বড় কওমী মাদরাসা হাটহাজারী মইনুল উলুম, নাজিরহাট বড় মাদরাসা, বাবুনগর মাদরাসা, নানুপুর বড় মাদ্রাসা, পটিয়া, জিরি মাদরাসাসহ মিলে ৩ হাজারেরও বেশি মাদরাসায় প্রায় ৪০ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছে।

এদের বেশিরভাগই আবাসিক শিক্ষার্থী। আলিয়া মাদরাসা সরকারের আওতাধীন সকল ছুটি অনুসরণ করলেও কওমী মাদরাসাগুলো বেফাকুল মাদারসিলি কওমিয়া (বেফাক) বোর্ডের আওতাধীন হওয়ায় তাদের নিজস্ব ছুটি অনুসরণ করে।