আওয়ামী লীগ নেতা ও তার স্ত্রীকে বেধড়ক পেটাল মাদকাসক্ত পুত্র

মাদক সেবনের টাকা না দেয়ায় মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগ নেতা বাবা এবং মাকে বেধড়ক মারধর করার অভিযোগ উঠেছে মাদকাসক্ত ছেলের বিরুদ্ধে। সোমবার (৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুর আড়াইটার দিকে নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুর ব্রাঞ্চ রোড এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ অভিযুক্ত পুত্র ফাহাদকে একটি চাইনিজ কুড়ালসহ আটক করেছে। এই ঘটনায় পিতা জয়নাল আবেদীন বাদী হয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় ছেলে ছাত্রলীগ নেতা ফরহাদকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলা দায়েরের পরপরই পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে।

আহত মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন টুলু ১২ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং খানপুর মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডার ও সাবেক ওয়ার্ড কমিশনার। তাকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে শহরের খানপুর ৩শ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ফাহাদ দীর্ঘদিন যাবত মাদকাসক্ত। প্রায় সময় নেশার টাকার জন্য সে তার মা-বাবাকে মারধর করতো। লোকলজ্জার ভয়ে এতদিন তার বাবা-মা বিষয়টি কাউকেই জানাননি। এই ধারাবাহিকতায় সোমবার দুপুরে ফাহাদ মাদক সেবনের জন্য তার বাবা-মায়ের কাছে টাকা চায়। কিন্তু বাবা মা নেশার টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে সে তার মা ও বাবাকে স্টিলের চাবুক দিয়ে বেধড়ক পেটায়। পরে তাদের চিৎকার শুনে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দিয়ে আহত জয়নাল আবেদীন টুলু ও তার স্ত্রীকে উদ্ধার করে খানপুর হাসপাতালে নিয়ে যান। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি চাইনিজ কুড়ালসহ ফাহাদকে আটক করে।

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) আসাদুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ব্যাপারে থানায় মামলা হয়েছে। তবে স্থানীদের কাছ থেকে জানতে পেরে আহতদের ছেলে ফাহাদকে একটি চাইনিজ কুড়ালসহ আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। বর্তমানে সে কারাগারে রয়েছে।