সংঘর্ষের পর কাউন্সিলর প্রার্থী অস্ত্রসহ আটক

রাজধানীর তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল এলাকায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ২৪নং ওয়ার্ডের স্বতন্ত্র কাউন্সিলর প্রার্থী তালুকদার সারওয়ার হোসেনকে অস্ত্র ও গুলিসহ আটক করেছে পুলিশ। এসময় তার অনুসারী আরও চার থেকে পাঁচজনকেও থানায় নেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে ওই ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী শফিউল্লাহ শফি ও তালুকদার সারওয়ারের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে কাউন্সিলর প্রার্থী তালুকদার সারওয়ারকে আটক করে পুলিশ।

শিল্পাঞ্চল থানার ওয়ারলেস অফিসার আল আমিন ঢাকা টাইমসকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে ঘটনার পর থানা হেফাজতে রয়েছেন তালুকদার সারওয়ার ও তার সহযোগীরা। তার বিরুদ্ধে মামলা প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে। আটকের সময় তার কাছ থেকে একটি রিভলবার, ১২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

তালুকদার সারওয়ার কাঁটা চামচ মার্কা নিয়ে স্বতন্ত্রভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তিনি এর আগে দুবার ওই এলাকার কমিশনার ছিলেন। তিনিও আওয়ামী লীগ থেকে সমর্থন চেয়েছিলেন। না পেয়ে স্বতন্ত্র হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

তার বন্ধু শহীদ অভিযোগ করে বলেন, ‘জুমার নামাজ শেষে তিনি মসজিদ থেকে বের হওয়ার সময় কয়েকজন লোক তার সঙ্গে হাত মেলান। এর মধ্যেই প্রতিদ্বন্দ্বী শফিউল্লাহ শফির লোকজন তার ওপর আক্রমণ চালায়। খোকনের নেতৃত্বে এই হামলা চালানো হয়। মারধরের একপর্যায়ে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়লে উপস্থিত মুসল্লিরা এগিয়ে এসে দুর্বৃত্তদের তাড়া করেন। হামলায় গুরুতর আহত হন সারওয়ার হোসেন। পরে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়।’

এ ব্যাপারে কথা বলতে শফিউল্লাহ শফির সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) বিপ্লব বিজয় তালুকদার ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘জুমার নামাজের পর সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তা নিয়ন্ত্রণে এনেছে। বর্তমানে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন আছে। তবে সেখান থেকে কাউকে আটক করা হয়েছে কি না আমি জানি না।’