শেষ ওভারে হারল বাংলাদেশ

লক্ষ্যটা যেকোনো বিচারেই ছোট ছিল। তবে ১৪২ রানের এই লক্ষ্যই পাকিস্তানের সামনে পর্বতপ্রমাণ করে তুললেন বাংলাদেশের বোলাররা। প্রথম ধাক্কাটা দিয়েছিলেন শফিউল। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট তুলে পাকিস্তানকে চাপে রেখেছিলেন মুস্তাফিজ ও আমিনুল। শেষ পর্যন্ত শেষ ওভারে ৩ বল হাতে রেখে ৫ উইকেটে জিতেছে পাকিস্তান। বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ দুই উইকেট নিয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান। পাকিস্তানের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫৮ রান করেছেন শোয়েব মালিক।

এর আগে, একদম হতশ্রী দশাতে দেখা দিল বাংলাদেশ। আরও একবার প্রমাণ হয়ে গেল ধীরেসুস্থে খেলা দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল এখন টি-টোয়েন্টিতে অচল। তিনি কোনোভাবেই আধুনিক ক্রিকেটের সাথে মানিয়ে নিতে পারছেন না। তাঁর আজকের ওপেনিং সঙ্গী নাঈমও আহামরি কিছু করতে পারেন নি তবে অন্তত নাইম চেষ্টাটুকু করেছেন। একের পর এক ডটের বন্যা বইয়ে বাংলাদেশ থেমেছে ১৪১ রানে।

তামিম ও নাইম এক পর্যায়ে ছয় ওভারে তুলে ছিলেন ৩৫ রান। এ ধরনের স্ট্রাইকরেট কোনোভাবেই বর্তমান যুগে মেনে নেয়া যায় না। বিশেষ করে তামিম তো সিঙ্গেল নেয়াই ভুলে গিয়েছিলেন, একটানা শুধু ডট খেলেছেন। সত্যিকার অর্থেই এখন তামিমের বিকল্প নিয়ে ভাবার সময় এসেছে। শুরুর এত ডটের জন্যেই হাতে পাঁচ উইকেট রেখেও বাংলাদেশ ১৪১ এর বেশি করতে পারে নি।