মোদি সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ, পশ্চিমবঙ্গ ও মেঘালয়ে রেল স্টেশন ভাঙচুর

বিতর্কিত নাগরিকত্ব বিলের (সিএবি) প্রতিবাদে বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে ভারত। রাজধানী দিল্লি ছাড়াও পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, ত্রিপুরা, মেঘালয় ও পাঞ্জাবসহ বেশ কয়েকটি অঞ্চলে সড়ক অবরোধ ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে।

শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ আর হাওড়াতে ব্যাপক বিক্ষোভের সময় বেশ কয়েকটি ট্রেন আর দুটি রেল স্টেশনে ভাঙচুর করা হয়েছে, জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে বাস।

সেনা, পুলিশ ও আধাসামরিক বাহিনীর প্রতিরোধ উপেক্ষা করে শুক্রবার বিভিন্ন স্থানে মিছিল, সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভকারীরা। মুর্শিদাবাদের বেলডাঙ্গা আর হাওড়ার উলুবেড়িয়া স্টেশন দুটিতে বিক্ষোভকারীরা ব্যাপক ভাঙচুর চালিয়েছে।

বিবিসি জানিয়েছে, উলুবেড়িয়া স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা কয়েকটি ট্রেনেও পাথর ছোঁড়া হয়। তারপরে দুটি স্টেশনের সামনেই আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। বন্ধ হয়ে যায় ট্রেন লাইন। হাওড়া থেকে খড়্গপুর ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। বেশ কিছু দূরপাল্লার ট্রেন আটকিয়ে পড়েছে।

বেলডাঙ্গা স্টেশনেও একই ভাবে ভাঙচুর চলে শুক্রবার। ওই এলাকার কয়েকটি বাস আর গাড়িতেও ভাঙচুর চালানোর পরে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। বিক্ষোভ হয় সেখানকার থানার সামনেও।

এ ঘটনার পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে এক উচ্চপর্যায়ের বৈঠক করেছেন। বৈঠকের শেষে তিনি আবেদন জানিয়েছেন যাতে মানুষ গণতান্ত্রিক পথে, শান্তিপূর্ণভাবে তাদের প্রতিবাদ জানান।

এর আগে বৃহস্পতিবার আসামে কারফিউ ভেঙে রাস্তায় নামেন হাজারও জনতা। তাদের রুখতে গুলি চালায় পুলিশ। এতে তিনজন নিহত ও দুইজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। গত কয়েক দিনের এ আন্দোলনে আসামে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ জনে।

তবে সরকারি কর্মকর্তাদের দাবি, মৃতের সংখ্যা তিনজন। বিক্ষোভ দমাতে বিভিন্ন রাজ্যে মোবাইল ফোন, ইন্টারনেট ও এসএমএস সার্ভিস বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন।

শুক্রবার সংঘাত ছড়িয়েছে দিল্লিতেও। দিল্লিতে পার্লামেন্ট ভবন অভিমুখে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছিলেন জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। দুপুরে তারা মিছিল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ছেড়ে বাইরে বের হতে চাইলে পুলিশের বাধার মুখে পড়েন। দুই পক্ষের সংঘর্ষে গণমাধ্যমকর্মীরাও আহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

পুলিশ পরে অর্ধশতাধিক বিক্ষোভকারীকে আটক করেছে। বিশ্ববিদ্যালয় ও এর আশপাশের এলাকায় বড় জমায়েতে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।