বাজারজুড়ে ইলিশ আর ইলিশ | |

বাজারজুড়ে ইলিশ আর ইলিশ

২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে মাছ শিকারে গেছেন জেলেরা। ফিরছেন ট্রলারভর্তি মাছ নিয়ে। সে মাছ বাঙালির যেন আরাধ্য। বলা হচ্ছে ইলিশের কথা। রাজধানীর বাজারে এখন ইলিশ আর ইলিশ। দাম ভোক্তাদের একেবারে নাগালে না থাকলেও নিষেধাজ্ঞার আগের দিনগুলোর চেয়ে তুলনামূলক কম। ফলে বাজারে এসে হাসিমুখ নিয়েই ফিরছেন ঘরে।

তবে সেই হাসি কিছুটা ম্লান করে দিচ্ছে পেঁয়াজ। নিত্যপণ্যটি যে রান্নার অন্যতম অনুষঙ্গ। তাছাড়া মাছ রান্নায় পেঁয়াজ তো অপরিহার্যও। এদিকে ইলিশের সঙ্গে শীতের আগাম সবজিও বাজার ভরেছে। মিলছে শিম, বাঁধাকপি, ফুলকপিসহ শীতের নানা সবজি।

প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ রক্ষায় মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা শেষে দেশের বিভিন্ন পাইকারি বাজারগুলোতে ইলিশের সরবরাহ বেড়েছে। সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে কিছুটা বেড়েছে ইলিশ মাছের দামও।

বরিশাল প্রতিনিধি জানিয়েছেন, প্রতিদিন ভোর থেকেই ইলিশ বেচাকেনার হাঁকডাকে সরগরম বরিশালের পোর্টরোড পাইকারি বাজার। ট্রলারে করে বাজারে ইলিশ সরবরাহ করেন জেলেরা। তবে প্রথমদিনের তুলনায় মাছের সরবরাহ কম বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, বরিশালের বৃহৎ মৎস্যকেন্দ্রটিতে ইলিশ কেনাবেচা আর ট্রাকে ভরার সময়ে শ্রমিকদের পদচারণায় এখন সরগরম। গতকাল সকাল নয়টার মধ্যে ইলিশে সয়লাব হয়ে গেছে মাছের পাইকারি বাজারটি। এরআগে ভোর থেকে বরিশালের বিভিন্ন স্থান থেকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও জেলেরা পাইকারি বাজারটিতে ইলিশ নিয়ে আসতে শুরু করে। সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ব্যবসায়ীদের হাক-ডাক, শ্রমিকদের কর্মব্যস্ততায় মুখরিত হয়ে উঠে পাইকারি এ বাজারটি।

মৎস্য ব্যবসায়ী শাহাবুদ্দিন জানান, বাজারে প্রচুর ইলিশ মাছ ওঠায় জেলেদের পাশাপাশি ব্যবসায়ীরাও অনেক খুশি।

বাজারে প্রচুর মাছ আসায় ইলিশের দাম কিছুটা কমেছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। তারা জানান, গতকাল ৬-৯ শত গ্রামের ইলিশের পাইকারি দর মণপ্রতি ২৩-২৪ হাজার টাকা, এক কেজি ওজনের ইলিশের মণ ৩০ হাজার টাকা, ১২শ’ গ্রামের ওপরে ইলিশের মণ ৩৫-৪০ হাজার টাকা দরে বিক্রি হয়েছে।

বরিশালের মতো চাঁদপুরে বাজারেও প্রচুর ইলিশ দেখা গেছে। আমাদের চাঁদপুর প্রতিনিধি জানান, প্রকারভেদে বেড়েছে ইলিশসহ সব ধরনের মাছের দাম। এতে দূর দূরান্ত থেকে মাছ কিনতে গিয়ে হতাশ ক্রেতারা। তবে ইলিশের দাম সহনীয় রয়েছে বলে দাবি বিক্রেতাদের।