প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিলেন বুয়েটের আন্দোলনকারীরা | |

প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিলেন বুয়েটের আন্দোলনকারীরা

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তৎপরতার জন্য তাকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানিয়েছে আন্দোলনকারীরা।

এসময় আসামিদের গ্রেফতারসহ অন্যান্য পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ দেন তারা।

মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) বিকেলে বুয়েটের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাদদেশে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ধন্যবাদ জানান শিক্ষার্থীরা। সেখানে কথা বলেন ১৫তম ব্যাচের শিক্ষার্থী সায়েম।

শিক্ষার্থীরা বলেন, তিনি (প্রধানমন্ত্রী) তৎপর ছিলেন বলেই এত দ্রুত অগ্রগতি সাধিত হয়েছে বলে আমরা বিশ্বাস করি। এসব কারণে আমরা বিশ্বাস করি, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও বিচার ব্যবস্থা তাদের স্বাভাবিক গতিতে এগিয়ে যাবে এবং সুষ্ঠুভাবে বিচার সম্পন্ন করার মাধ্যমে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে।

শিক্ষার্থী সায়েম বলেন, গতকাল (সোমবার, ১৪ অক্টোবর) বুয়েট ক্যাম্পাসে পূর্ণ নিরাপত্তায় সুষ্ঠুভাবে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আমাদের ১০ দফা দাবি ছিল, এর মধ্যে ১, ৪ ও ৫; এই তিনটা দাবি ছিল আমাদের আইন প্রয়োগকারী সংস্থার ওপরে। ইতোমধ্যে অনেকে গ্রেফতার হয়েছে, ১৬১ ও ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে। অনেকের রিমান্ড মঞ্জুর হয়েছে। এসবের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এবং এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাতে চাই। এক্ষেত্রে আমরা বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানাতে চাই প্রধানমন্ত্রীকে, যিনি বিশেষভাবে তৎপর ছিলেন বলেই এত দ্রুত অগ্রগতি সাধিত হয়েছে বলে আমরা বিশ্বাস করি।

এসময় বুয়েট প্রশাসন কর্তৃক দাবি মেনে নোটিশ দেওয়ার বিষয়গুলো উল্লেখ করেন তিনি।

সায়েম বলেন, বুয়েট প্রশাসন চলমান তদন্ত প্রক্রিয়ায় দৃশ্যমান অগ্রগতি সাধনের মাধ্যমে সদিচ্ছা ইতোমধ্যে দেখিয়েছে। আমরা সেই সদিচ্ছার প্রতি পূর্ণ শ্রদ্ধা রেখে আগামীকাল (বুধবার, ১৬ অক্টোবর) আমাদের মাঠ পর্যায়ের কর্মসূচিতে ইতি টানার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগামীকাল বুয়েটের সাধারণ শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা মিলে গণশপথে অংশ নেবো। এর মাধ্যমে আমরা আমাদের ক্যাম্পাসে সাম্প্রদায়িকতা ও সন্ত্রাস রুখে দেওয়ার জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হবো।

প্রসঙ্গত,গত ৬ অক্টোবর বুয়েটের শেরে বাংলা হলে আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এরপর থেকে ১০ দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।