রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে ব্রিটিশ এমপিদের সহায়তা চাইলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মিয়ানমারের রাখাইনে নিজ বাসভূমিতে রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও স্থায়ী প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে ব্রিটিশ এমপিদের সহায়তা চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানানো হয়।

অ্যান মেটি জারবাইয়ের নেতৃত্বে ব্রিটিশ এমপিদের জনসংখ্যা, উন্নয়ন এবং প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়ক সর্বদলীয় ১৪ সদস্যের একটি সংসদীয় দল ঢাকায় সফরে রয়েছে। রবিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এই দলের সঙ্গে এক বৈঠকে মন্ত্রী এ সহায়তা চান।

মিয়ানমার থেকে জীবন বাঁচাতে পালিয়ে আসা গৃহহারা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ায় বাংলাদেশে অর্থনৈতিক ও পরিবেশগত বিরূপ প্রভাবের কথা তুলে ধরেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন।

মোমেন গৃহহারা এসব রোহিঙ্গাদের নিরাপদে তাদের নিজ দেশে প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টির জন্য আন্তর্জাতিক ফোরামে বিশেষ করে জাতিসঙ্গে বাংলাদেশের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

তিনি বৈঠকে বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক সেক্টরে বিশেষ করে শিশু ও মাতৃ মৃত্যুর হার হ্রাস এবং জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারে বাংলাদেশের অগ্রগতি সম্পর্কে তাদের অবহিত করেন। তিনি বাংলাদেশ এবং তাদের স্বাগতিক দেশের উন্নয়নে বাংলাদেশি ব্রিটিশদের ভূমিকার কথা উল্লেখ করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) এবং ডেল্টা প্লান-২১০০ বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের মধ্যকার সহযোগিতা আগামী দিনগুলোতে অব্যাহত থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

বৈঠকে ব্রিটিশ সংসদ সদস্যগন মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের নিরাপদ প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করার জন্য ঢাকার সঙ্গে লন্ডন অব্যাহত কাজ করার আশ্বাস প্রদান করেন। তারা ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেওয়া এবং সকল প্রকার মানবিক সহায়তা প্রদানে বাংলাদেশের ভূমিকার প্রশংসা করেন।

ব্রিটিশ সংসদ সদস্যরা বাংলাদেশের শিশু ও মাতৃ স্বাস্থ্য, দারিদ্র্য বিমোচন, নারীর ক্ষমতায়ন, প্রযুক্তি ও সক্ষমতার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতির প্রশংসা করেন। তারা যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্যের ওপর একটি শিক্ষা সফরে বাংলাদেশে এসেছেন।