রাশেদ চৌধুরীর বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র আগের চেয়ে পজিটিভ কন্ডিশনে: আইনমন্ত্রী

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার দণ্ডিত পলাতক খুনিদের খুঁজে বের করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। আর যে দুজনের অবস্থান জানা আছে তাদের দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছি।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার দণ্ডিত পালাতক খুনিদের দেশে ফেরত আনার পদক্ষেপ’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

কেন্দ্রীয় ১৪ দল এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করে। এতে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম।

আইনমন্ত্রী বলেন, নূর চৌধুরীকে কানাডা সরকার কোনো রাজনৈতিক আশ্রয় দেয়নি। তবে সে দেশের সুপ্রিম কোর্টের রায়ের কারণে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত কাউকে তারা ফেরত দেয় না। তবে আমরা আশাবাদী, কূটনৈতিক ও আইনগত মাধ্যমে আমরা তাকে দেশে ফিরিয়ে আনতে পারব। আমরা সেই চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, রাশেদ চৌধুরীকে দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র আগের চেয়ে পজিটিভ কন্ডিশনে আছে। আমরা তাকে ফিরিয়ে আনা নিয়ে আশাবাদী।

বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে কারা ছিল- তা উদঘাটনে কমিশন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে জানিয়ে আইনমন্ত্রী আরও বলেন, এই কমিশনে কারা থাকবে এবং এর কার্যপরিধি কী হবে- তা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত দেবেন। তবে কমিশনের আওতায় বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জাতীয় চার নেতা হত্যাকাণ্ডের বিষয়টিও অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

সভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন বলেন, এখনও পর্যন্ত হত্যাকারীদের তিনজনের সঠিক অবস্থান জানি না। তবে আমরা দুই জনের অবস্থান জানি তারা কোথায় আছেন। যাদের অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেছে আগামী বছর বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী আয়োজনের আগেই তাদের দেশে ফিরিয়ে এনে দণ্ড কার্যকরের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব।

আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম ও অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. দিলীপ রায়, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক উপদেষ্টা সিনিয়র সাংবাদিক ইকবাল সোবহান চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।