পেঁয়াজের কেজি ৭০ টাকা: কারসাজি ধরতে চিরুনি অভিযান শুরু হচ্ছে | |

পেঁয়াজের কেজি ৭০ টাকা: কারসাজি ধরতে চিরুনি অভিযান শুরু হচ্ছে

রাজধানীর প্রায় সবগুলো বাজারে রোববার প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ৬০ টাকা থেকে ৭০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। ১৫ দিন আগে এ পেঁয়াজ ৪০-৪৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

আর আমদানি করা পেঁয়াজ ৫০-৬০ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে। ১৫ দিন আগে এটি ৩০-৩৫ টাকায় বিক্রি হয়। ১৫ দিনের বাজারমূল্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে- খুচরা পর্যায়ে পেঁয়াজের দাম সর্বোচ্চ ২৫ টাকা বেড়েছে।

এ দাম বাড়ায় নড়েচড়ে বসেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। এর পেছনে ব্যবসায়ীদের কারসাজি আছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে আজ থেকে চিরুনি অভিযান পরিচালনা করতে যাচ্ছে অধিদফতর।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের উপপরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, হঠাৎ করে পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। এ কারণে গত সপ্তাহে পাইকারি বাজারে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। তবে সেখানে তেমন কোনো অনিয়ম পাওয়া যায়নি। মনে হচ্ছে- মোকাম ও খুচরা বিক্রেতারা অতিরিক্ত দাম বাড়ানোর জন্য দায়ী। তিনি বলেন, ভারতে পেঁয়াজের দাম বাড়লে তা আসতেও কিছু সময় লাগে। তিনি বলেন, যে দিন ভারতে পেঁয়াজের দাম বাড়ে ঠিক সে দিনের আগে আমদানি করা পেঁয়াজে দাম বাংলাদেশে কি করে বাড়ে! এ প্রশ্নটা থেকেই যায়। ভারতে দাম বাড়ার সংবাদ শুনে দেশের মোকাম ও খুচরা ব্যবসায়ীরা নিজেরাই দাম বাড়িয়ে বিক্রি করে। এছাড়া পাইকারি ও খুচরা বাজারের পেঁয়াজের দামের ব্যবধান অনেক বেশি।
উপপরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার আরও বলেন, এটা ঠিক ভারতে পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। তবে এ বাড়তি দরের সঙ্গে দেশের বাজারে কতটা মিল রেখে বিক্রি হচ্ছে, নাকি বাড়তি মুনাফা করার জন্য আরও বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে তা তদারকি করা হবে। মোকাম থেকে শুরু করে পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে আজ থেকে চিরুনি অভিযান পরিচালনা করা হবে। দোষীদের খুঁজে বের করে ভোক্তা আইনে কঠোর শাস্তির আওতায় আনা হবে। দরকার হলে দোষীদের জেলে দেয়া হবে।

এদিকে রাজধানীর পাইকারি পেঁয়াজের আড়ত শ্যামবাজার ও কারওয়ান বাজার ঘুরে ও বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রোববার পাইকারি পর্যায়ে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ৩৮-৪৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

যা ঈদের আগে ৩০-৩৫ টাকা বিক্রি হয়। এ হিসাবে কেজিতে দাম বেড়েছে ৮-১০ টাকা। আমদানি পেঁয়াজ প্রতি কেজি মানভেদে ৩৮-৪২ টাকায় বিক্রি হয়েছে। যা ঈদের আগে ২৮-৩০ টাকায় বিক্রি হয়। কেজিতে দাম ১০-১২ টাকা বেড়েছে। এদিকে সরকারি সংস্থা ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) বলছে, এক মাসের ব্যবধানে দেশি পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ২৩ দশমিক ৫৩ শতাংশ। আর আমদানি করা পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৪৬ দশমিক ২৭ শতাংশ।

রাজধানীর পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ের বিক্রেতারা বলছেন, দেশি পেঁয়াজের মজুদ শেষের দিকে। এছাড়া ভারতীয় পেঁয়াজের দাম বেশি। এ কারণে বাজারে সরবরাহ অনেক কম এবং দামও বেশি। তবে সরবরাহ বাড়লে দাম কমবে। তবে এ দুই পর্যায়ে সরবরাহের কোনো ঘাটতি দেখা যায়নি। পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে পেঁয়াজের দামে বিশাল ফারাক লক্ষ করা গেছে। এ দিন যে দেশি পেঁয়াজ পাইকারি বাজারে ৩৮-৪৫ টাকা বিক্রি হয়েছে, সে পেঁয়াজ খুচরা বাজারে ৬০-৭০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এক্ষেত্রে পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে দামের ব্যবধান ২২-২৫ টাকা। আর আমদানি করা পেঁয়াজে পাইকারি ও খুচরাতে দামের ব্যবধান দেখা গেছে ২২-২৮ টাকা।
রাজধানীর নয়াবাজারের খুচরা বিক্রেতা মো. আক্কাস আলী বলেন, পাইকারি থেকে খুচরা বাজারে দাম একটু বেশি হয়। তবে এত বেশি কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, নানা ধরনের খরচ দিয়ে ব্যবসা করতে হয়। এ কারণে একটু বেশিতে বিক্রি না করলে লাভ থাকে না। তিনি বলেন, পাইকারি বাজার থেকে পণ্য আনতে সেখানের লাইনম্যানকে টাকা দিতে হয়। এছাড়া পরিবহন খরচ, জায়গার ভাড়া সব মিলিয়ে দাম একটু বেশি পড়ে। ক্রেতা মো. ইকরাম বলেন, যে কোনো অজুুহাতে বিক্রেতারা পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেয়। পেঁয়াজের দাম দুই সপ্তাহ ধরে বাড়ছে। দেখা যায়, মোকামে পাঁচ টাকা বাড়লে পাইকারিতে বাড়ে ১০ টাকা। আর খুচরায় বাড়িয়ে দেয় ৩০ টাকা। সবাই অজুহাত খুঁজে বেড়ায়। আর আমাদের মতো সাধারণ মানুষকে ভোগান্তিতে পড়তে হয়। তাই বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থার এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া দরকার।সূত্রঃ যুগান্তর