পর্দা-বালিশ এগুলো ছিঁচকে চুরি: ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পর্দা-বালিশ এগুলো ছিঁচকে চুরি। এগুলো কোনো মন্ত্রী-এমপি করে নাই। এ সরকারের সব থেকে বেশি যে বিষয়টা লক্ষ্য করার মতো সেটা হলো, এ সরকারের আমলে অপসংস্কৃতি গড়ে উঠেনি। অপকর্ম যে-ই করুক শাস্তি হচ্ছে।

দুর্নীতিকে একটি বৈশ্বিক সমস্যা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটা শুধু বাংলাদেশের বিষয় না। দুর্নীতি হচ্ছে, অনিয়ম অপকর্ম হলে এর বিরুদ্ধে সরকার কি অবস্থান নিচ্ছে সেটা দেখতে হবে। এখানে সরকার জিরো টলারেন্সে অবস্থানে আছে।

আমাদের অনেক এমপির বিরুদ্ধে দুদকের অভিযোগে তারা হাজিরা দিচ্ছে। অনেকের মামলা চার্জশিট হয়ে গেছে। অনেকের বিচারও হয়েছে। এখানে যেই অপকর্ম করুক, অন্যায় করুক, দুর্নীতি করুক, কেউ ছাড় পাবে না। দুর্নীতি সারা পৃথিবীতেই আছে। কিন্তু সরকার দুর্নীতিকে ছাড় দিচ্ছে কিনা, আশ্রয় প্রশ্রয় দিচ্ছে কিনা সেটা হলো বড় কথা।

রোববার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার ভুলতা এলাকায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভুলতা ফ্লাইওভার পরিদর্শন করতে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

সম্প্রতি ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের পেছনে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোনো কোন্দল কাজ করেছে কিনা-জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। একটি কমিটি হওয়ার পর প্রেসিডেন্ট সেক্রেটারিকে অব্যাহতি দেওয়া। পদত্যাগ করতে বলা। এটা একটি বিরাট সাংগঠনিক পদক্ষেপ। শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে এরকম বড় পদক্ষেপ এদেশের কোনো সংগঠনে ঘটেনি। কাজেই সাংগঠনিক দিক থেকে এটা বড় ধরনের ব্যবস্থা বা অ্যাকশন। নেত্রী এ অ্যাকশন নিয়েছেন।

এ ব্যাপারে তিনি আরও বলেন, এটা দলের শৃঙ্খলার ব্যাপার। ছাত্রলীগের কমিটি পার্টির সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করেছেন। এখন এদের শৃঙ্খলা ভঙ্গের কিছু অভিযোগ আসায় এ পদক্ষেপটি নিয়েছেন। আমরা আশা করছি এরপর ছাত্রলীগ তাদের ধারায় ফিরে আসবে। এখন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, সেক্রেটারি, সহ সভাপতি যাদের করা হয়েছে তাদের উপর দায়িত্ব হচ্ছে পরবর্তী সম্মেলনের জন্য প্রস্তুতি নেওয়া। তারা প্রস্তুতি নিবে পরবর্তীতে একটি ভালো সম্মেলন করার জন্য।

ওবায়দুল কাদের বলেন, “আওয়ামী লীগে গুরুতর কোনো সমস্যা নেই। আওয়ামী লীগের ভেতরে শৃঙ্খলা ভঙ্গের ঘটনাগুলোতে ইতিমধ্যে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আমরা সম্মেলনের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত। …আর আমাদের উপজেলা নির্বাচনে যারা বিদ্রোহী প্রার্থী ছিল ১৭৫টির মতো শোকজ নোটিশ তাদের দেওয়া হয়েছে। তিন সপ্তাহের মধ্যে তাদেরকে এ শোকজের জবাব দিতে হবে। এ প্রক্রিয়াটা শেষ হলে উপজেলার বিদ্রোহী প্রার্থীদের যারা মদদ দাতা তাদের বিরুদ্ধেও শোকজ নোটিশ প্রস্তুত আছে।

ভুলতা ফ্লাইওভার উদ্বোধনের বিষয়ে মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ৩৭৫ কোটি টাকা ব্যয়ে চার লেনবিশিষ্ট ভুলতা ফ্লাইওভারটি নির্মাণ করা হয়েছে। খুব শিগগিরই প্রধানমন্ত্রী সময় সুযোগ মতো ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এটি উদ্বোধন করবেন। কিন্তু যানজট নিরসন ও জনদুর্ভোগ কমাতে জনগণের সুবিধার জন্য আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের আগেই যান চলাচলের জন্য খুলে দিতে তিনিই বলেছেন।