ইয়াবাসহ বিকাশ প্রতারক চক্রের ৫ সদস্য গ্রেফতার | |

ইয়াবাসহ বিকাশ প্রতারক চক্রের ৫ সদস্য গ্রেফতার

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় ইয়াবাসহ বিকাশ প্রতারক চক্রের ৫ সদস্য র‌্যাবের হাতে আটক।

র‌্যাব-৮, সিপিসি-২ ফরিদপুর র‌্যাব ক্যাম্প স্কোয়াড অধিনায়ক সহকারি পুলিশ সুপার দেবাশীষ কর্মকার জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি জেলার ভাংগায় মিয়াপাড়া গ্রাম এলাকায় কিছু ব্যক্তি বিকাশ প্রতারণার মাধ্যমে মানুষের নিকট হতে বিপুল পরিমান অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। এ বিষয়ে ফরিদপুর র‌্যাব ক্যাম্প গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ ও ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ের জন্য গভীর অনুসন্ধান করে। ঘটনা সত্যতা সম্পর্কে তথ্য প্রাপ্তির পর র‌্যাব-৮, সিপিসি-২ ফরিদপুর ক্যাম্পের একটি বিশেষ আভিযানিক দল সোমবার গভীর রাতে মিয়াপাড়া গ্রাম এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে বিকাশ প্রতারণা চক্রের ৫ জন সক্রিয় সদস্য ইয়াবাসহ আটক করে।

আটককৃতরা হলো-উপজেলার মিয়াপাড়া গ্রামের মোঃ দেলোয়ার মাতুব্বর ছেলে মোঃ রুবেল মাতুব্বর(৩০), মোঃ মজিদ শেখের ছেলে মোঃ ঠান্ডু শেখ (২৮), মৃত শাহজাহান হাওলাদারের ছেলে মোঃ কামাল হাওলাদার(৩১), সিদ্দিক মাতুব্বরের ছেলে সামাদ মাতুব্বর(২৬), মোঃ হাবিব খানের ছেলে মোঃ ইমরান খান(১৯)।

এ সময় আটককৃত প্রতারক চক্রের হেফাজত হতে বিকাশ প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত ১৬টি মোবাইল সেট, ৪৬টি সীমকার্ড, ৯ পিস ইয়াবা এবং ১হাজার টাকা জব্দ করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃত ৫ জন, বিকাশ প্রতারণার মাধ্যমে জনসাধারণের নিকট হতে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে বলে স্বীকার করে।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, বিকাশ প্রতারক চক্রের সদস্যরা বিভিন্ন দুর্নীতি পরায়ণ মোবাইল সীম বিক্রেতার সাথে পরস্পর যোগসাজস করে ভুয়া নামে সীম কার্ড রেজিস্ট্রেশন ও উক্ত সীমকার্ড ব্যবহার করে অসাধু ডিএসআর(বিকাশ এ্যাকাউন্ট খোলার জন্য বিকাশ কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নিয়োগকৃত এ্যজেন্ট) গণের মাধ্যমে ভুয়া বিকাশ এ্যাকাউন্ট খোলে। প্রতারক চক্রের সদস্যরা দুর্নীতিপরায়ণ ডিএসআর গণের নিকট থেকে অর্থের বিনিময়ে বিকাশ এ্যজেন্টদের লেনদেনের তথ্য সংগ্রহ করে ঐসব ভুয়া রেজিস্ট্রেশনকৃত মোবাইল সীমকার্ড ব্যবহার করে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের জনগনের নিকট নিজেদেরকে বিকাশ হেড অফিসের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে ফোন করে কৌশলে তাদের বিকাশ পিন কোড জেনে নেই এবং স্মার্ট ফোনে বিকাশ অ্যাপস ব্যবহার করে উক্ত সাধারণ লোকজনের বিকাশ এ্যাকাউন্ট হতে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নেয়।