দৌলতদিয়া ঘাটে ভিআইপি প্রথা বাতিল

দক্ষিণাঞ্চলের প্রবেশদ্বার হিসেবে খ্যাত দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে যাত্রী দুর্ভোগ কমাতে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে রাজবাড়ী জেলা পুলিশ।

এর অংশহিসেবে এই ঘাট দিয়ে অবৈধভাবে সিরিয়ালের তোয়াক্কা না করে চলা এসি বাসসহ অন্যান্য যানবাহনের ভিআইপি সুবিধা বাতিল করা হয়েছে।

শনিবার দুপুরে রাজবাড়ীর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে পুলিশ সুপার মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে আসন্ন ঈদুল আজহা উদযাপন উপলক্ষে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনাসহ সার্বিক আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক বিশেষ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয় দৌলতদিয়া ঘাটের বিভিন্ন পয়েন্টে বন্ধ সিসি ক্যামেরাগুলো নতুন করে স্থাপন করা হবে। ঈদের আগে ৩ দিন ও পরে ৩ দিন পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার বন্ধ থাকবে। সরাসরি পার হবে গরু, কাঁচামালবাহী ট্রাক ও যাত্রীবাহী বাস।

এসি বাসে চলাচলকারী কথিত ভিআইপিদের জন্য থাকছে না স্পেশাল কোনো ব্যবস্থা। এখন থেকে সব পরিবহনের মতো সিরিয়ালে পার হতে হবে ওই সব এসি বাস। অতিরিক্ত ভাড়া আদায় এবং নিয়ন্ত্রণহীনভাবে স্থাপন করা অবৈধ মৌসুমী বাস কাউন্টার পদ্ধতিও বাতিল করার ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

সভায় পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ছাড়াও দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলার বাস মালিক গ্রুপের নেতৃবৃন্দ, পরিবহন শ্রমিক নেতা, বিআইডব্লিউটিসি, বিআইডব্লিউটিএ, লঞ্চ মালিক, থ্রি-হুইলার মালিক সমিতি, সড়ক ও জনপথ বিভাগ, ফায়ার সার্ভিসসহ দৌলতদিয়া ঘাট সংশিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, ঘাট এলাকায় যাত্রীদের দুর্ভোগ কমাতে গৃহিত সিদ্ধান্তগুলো কঠোরভাবে পালন করা হবে। অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করলে নেয়া হবে আইনি ব্যবস্থা। প্রতিটি বাসে ভাড়ার চার্ট এবং দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় বড় আকারে ওই চার্ট প্রদর্শন করতে হবে।

সোমবার সরেজমিন দেখা যায়, সকাল থেকেই ঘাটে যানবাহনের চাপ সৃষ্টি হয়েছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গরুবাহী বহু ট্রাক আসতে থাকে।

বিকাল ৫টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত যানবাহনের সারি মহাসড়কের প্রায় ৩ কিমি বিস্তৃত ছিল। আটকে থাকা ৩ শতাধিক যানবাহনের মধ্যে অপচনশীল ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান রয়েছে।

এ দিকে গরুর গাড়িগুলোকে নির্বিঘ্নে পার করতে ফোরলেন সড়কের পশ্চিম লেনের একটি সারি ফাঁকা রাখা হয়েছে। এখান দিয়ে যাত্রীবাহী বাস, কাঁচামালবাহী ট্রাক ও অন্যান্য জরুরি যানবাহন পার করা হচ্ছে। এসি বাসগুলোকেও এ লাইন দিয়ে সিরিয়ালে ঘাটের উদ্দেশ্যে দেখা যায়।

এতদিন এসি বাসগুলোগুলোকে ভিআইপি মর্যাদা দিয়ে সিরিয়ালের তোয়াক্কা না করে সরাসরি ফেরিতে ওঠার সুযোগ করে দেয়া হতো।

বিআইডব্লিটিসির দৌলতদিয়া ঘাট ব্যবস্থাপক আবু আবদুল্লাহ রনি জানান, কোরবানির পশুবাহী ট্রাক আসতে শুরু করায় বাড়তি চাপ সৃষ্টি হয়েছে। রুটে ৮টি রো রো ও ৮টি অন্যান্য ফেরি মিলে মোট ১৬টি ফেরি চলছে। শাহজালাল ও মাধবী লতা ফেরি দুটি যান্ত্রিক সমস্যায় স্থানীয়ভাবে মেরামত করা হচ্ছে। দ্রুতই ফেরি দুটি চালু হবে।

এ ছাড়া আগামী শুক্রবারের মধ্যে রো রো ফেরি শাহ মখদুম ও বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের মেরামত শেষে বহরে যোগ দেয়ার কথা রয়েছে বলে তিনি জানান।