ডেঙ্গু নিয়ে ‘ছেলেধরার মত’ গুজব ছড়ানো হচ্ছে: মেয়র খোকন

ডেঙ্গু রোগে আক্রান্তের সংখ্যা নিয়ে একটি গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে গুজব ছড়ানোর অভিযোগ করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন। তিনি বলেন, “এ বিষয়ে ‘ছেলেধরার’ মত গুজব ছড়ানো হচ্ছে।”

ডেঙ্গু নিয়ে আতঙ্কের মধ্যে বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকার মানিক মিয়া এভিনিউয়ে ‘মশক নিধন ও পরিচ্ছন্নতা সপ্তাহের’ উদ্বোধন করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। এতে অতিথি ছিলেন মেয়র খোকন। অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

এই কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে এমন এক সময়ে যখন রাজধানীর হাসপাতালগুলো ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ততে ছেয়ে গেছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, কেবল জুলাই মাসে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ছয় হাজার ৪২১ জন। তবে হাসপাতালে না যাওয়া রোগীর সংখ্যা এর ৪০ গুণেরও বেশি বলে ধারণা করা হয়। দৈনিক প্রথম আলো ছেপেছে সংখ্যাটি তিন লাখের কাছাকাছি।

তবে মেয়র খোকন বলেন, ‘মশা নিয়ে রাজনীতি কাম্য নয়। যে তথ্য এসেছে সাড়ে তিন লাখ আক্রান্তের কাল্পনিক তথ্য…. এটা সম্পূর্ণভাবে কাল্পনিক, বিভ্রান্তিমূলক।’

‘ছেলে ধরা, সাড়ে তিন লাখ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত একই সূত্রে গাঁথা। সরকার দৃঢ়ভাবে প্রতিজ্ঞ, জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এই ষড়যন্ত্রকারীদেরা মোকাবেলা করবে। ডেঙ্গু রোগীদের পাশে থেকে কঠিন জেবাব দেওয়ার জন্য সরকার প্রতিজ্ঞ।’

ডেঙ্গু রোগ নিয়ে সরকার স্পষ্টতই উদ্বিগ্ন। আর বুধবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জরুরি সভায় পর ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে ডেঙ্গু প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় ওষুধ দ্রুত সংগ্রহ করতে উদ্যোগ নিতে বলা হয়। আর এর পরদিনই মানিক মিয়া এভিনিউ থেকে সাত দিন ব্যাপী মশক নিধন ও পরিচ্ছন্নতা সপ্তাহের উদ্বোধন করা হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম। তিনি দাবি করেন, ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের মধ্যে সমন্বয়হীনতার অভিযোগ থাকলেও সেটা সত্য নয়। বলেন, ‘পরিস্থিতি আমাদের নিয়ন্ত্রণে আছে।’

বাংলাদেশে ডেঙ্গুতে মৃত্যুর সংখ্যা তুলনামূলক উন্নত দেশের চেয়ে কম বলেও দাবি করেন মন্ত্রী। বলেন, ‘আমরা কাজ করছি। হয়তো আমরা লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারছি না এবং যে মৃত্যু হচ্ছে তার জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখিত।’

মশা নিধনে যে ‍ওষুধ ব্যবহার করা হয়, তার কার্যকারিতা নিয়ে যে প্রশ্ন উঠেছে, সেটা সঠিক নয় দাবি করে মন্ত্রী বলেন, পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখা গেছে এই ওষুধ ঠিক আছে।