আজও নিম্নমুখী পুঁজিবাজার, তবে বেড়েছে লেনদেন | |

আজও নিম্নমুখী পুঁজিবাজার, তবে বেড়েছে লেনদেন

গতকালের মতো আজ বুধবারও পতনের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে উভয় শেয়ারবাজারে লেনদেন। সাথে কমেছে অংশ নেওয়া বেশিরভাগ শেয়ারের দর। তবে আজ ও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেনের পরিমাণ বেড়েছে।

আজ লেনদেনের শুরু থেকেই ছিল বিক্রির চাপ। দুপুর দেড়টা পর্যন্ত টানা বিক্রির চাপে সূচক ৪৬ পয়েন্ট নেমে যায়। তবে শেষ ঘণ্টায় কিছু শেয়ার কেনা হলেও তা সূচকের গতিপথ পরিবর্তন করতে পারেনি। লেনদেন শেষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রধান সূচক ৩৬ পয়েন্ট নেতিবাচক অবস্থানে থাকে। লেনদেন সামান্য বাড়লেও কমেছে বেশিরভাগ শেয়ারের দর। ডিএসইতে গতকাল ৪০ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। কমেছে ৪৯ শতাংশের। প্রায় সব খাতেই ছিল বিক্রির চাপ। ব্যতিক্রম ছিল বস্ত্র ও মিউচুয়াল ফান্ড খাত। এ দুই খাতে লেনদেন ও শেয়ারের দর দুটোই ইতিবাচক ছিল। তবে গতকাল জুন ক্লোজিং খাতগুলোতে দর বাড়তে দেখা গেছে। অন্যদিকে কমেছে ডিসেম্বর ক্লোজিং কোম্পানির দর।
বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, ডিএসই প্রধান বা ডিএসইএক্স সূচক ১২ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৫ হাজার ৩৭২ পয়েন্টে। অন্য সূচকগুলোর মধ্যে ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ১ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ২৩৩ পয়েন্টে এবং ডিএস৩০ সূচক ৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৯০৯ পয়েন্টে।

ডিএসইতে আজ টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ৫০৭ কোটি ৪৭ লাখ ৩৮ হাজার টাকার। যা গত কার্যদিবস থেকে ২৫ কোটি টাকা বেশি। গত কার্যদিবসে লেনদেনের পরিমাণ ছিল ৪৮২ কোটি ৭১ লাখ ১০ হাজার টাকা।

আজ ডিএসইতে ৩৫৩টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৩৭ শতাংশ বা ১২৬ টির, কমেছে ৫০ শতাংশ বা ১৭৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৪ শতাংশ বা ৫০টির।

অপরদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৪৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৬ হাজার ৪৬৩ পয়েন্টে। এ সময়ে সিএসইতে লেনদেনে অংশ নিয়েছে ২৬৮টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৯৭টির, কমেছে ১৩৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৭টির।