শাহজালালে সৌদি ইমিগ্রেশন সেন্টার স্থাপনের প্রস্তুতি পরিদর্শন ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর

সৌদি আরবের মক্কায় অনুষ্ঠিত ‘কোরআন ও সুন্নাহর আলোকে মধ্যপন্থা ও উদারতার মূল্যবোধ’ বিষয়ে মুসলিম ওয়াল্ড লীগের আয়োজিত আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগদান শেষে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী আলহাজ শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ রোববার রাতে দেশে ফিরেছেন। দেশে ফিরেই শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সৌদি ইমিগ্রেশন সেন্টার স্থাপনের প্রস্তুতি পরিদর্শন করেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী।

ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য অফিসার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসাইন প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে জানানো হয়, হজযাত্রীদের সৌদি আরবের বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন করার পরিবর্তে ঢাকা বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন কার্যক্রম করার বিষয়টি অনেকটা এগিয়ে নিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মক্কা রোড ইনিশিয়েটিভের আওতায় এ বছর থেকে বাংলাদেশি হজযাত্রীদের প্রি-অ্যারাইবেল ইমিগ্রেশন কার্যক্রম পরিচালিত হবে।এ উপলক্ষে বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতায় সৌদি ইমিগ্রেশন ও হজ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে হজ ইমিগ্রেশন জোন প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে।

রোববার রাতে দেশে ফিরেই হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক টার্মিনালের ১১নং গেইট সংলগ্ন হজ ইমিগ্রেশন কার্যক্রম সরেজমিন পরিদর্শন করেন ধর্মপ্রতিমন্ত্রী আলহাজ শেখ আব্দুল্লাহ। এসময় তিনি ইমিগ্রেশন জোন স্থাপনের সঙ্গে সম্পৃক্ত সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধিদের সঙ্গেও কথা বলেন এবং দ্রুততম সময়ে অবশিষ্ট কার্যক্রম সম্পন্ন করার নির্দেশ প্রদান করেন।

পরিদর্শনকালে ধর্ম সচিব মো. আনিছুর রহমান, যুগ্ম সচিব এবিএম আমিন উল্লাহ নুরী, যুগ্ম সচিব আ.হামিদ জমাদ্দার, হজ্জ এজেন্সীস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) সভাপতি এম শাহাদত হোসাইন তসলিম উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, সৌদি আরবের বিমানবন্দরে বাংলাদেশি হজযাত্রীদের অপেক্ষার সময় ও কষ্ট কমিয়ে আনার লক্ষ্যে সেদেশের পরিবর্তে বাংলাদেশেই প্রি-অ্যারাইভাল ইমিগ্রেশন কার্যক্রম সম্পন্ন করার চেষ্টা করছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এটি কার্যকর হলে হজযাত্রীদের জেদ্দা বিমানবন্দরে নেমে ইমিগ্রেশন কার্যক্রম সম্পন্ন করতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হবে না।