নরসিংদীতে দেশিয় মাছের চাষে সাবলম্বী হচ্ছে তরুণরা, বাড়ছে পুকুর | |

নরসিংদীতে দেশিয় মাছের চাষে সাবলম্বী হচ্ছে তরুণরা, বাড়ছে পুকুর

নরসিংদীতে মাছ চাষ করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছেন শীতল চন্দ্র সাহাসহ আরো অনেকেই। এখন তারা দেশিয় মাছ চাষ করে একদিকে যেমন লাভবান, অন্যদিকে আমিষের চাহিদা পূরণ করে হারিয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা পেয়েছে দেশিয় মাছ।

মাছ চাষের পাশাপাশি তারা পুকুর পাড়ে কলা, লাউ, শিমসহ নানান জাতের সবজি চাষ করে হচ্ছেন বাড়তি লাভবান। মৎস্য বিভাগ জলাশয় সংস্কারের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্পের আওতায় এই পুকুর খনন কাজে সহায়তা করছে। এতে একদিকে বেকারত্ব দূর হচ্ছে অন্যদিকে আমিষের চাহিদা পূরণ হচ্ছে।

কিন্তু এই নরসিংদী জেলাতে বিগত সময়ের তুলনায় বর্তমান সময়ে নদীর পাড়ে থাকা জেলেরাও এখন শহরাঞ্চলে এসে পুকুর ভাড়া করে নিয়ে বিভিন্ন মাছ চাষ করে হচ্ছেন লাভবান।

আজ ৩০ মে নরসিংদী পুলিশ লাইন্সের সামনে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সামনে প্রায় ৫০০ কেজির মতো মাছ ধরার জন্য এই পুকুর পাড়ে অবস্থান নিয়েছেন জেলেরা।

এই বিষয়ে তাদের জিজ্ঞাসা করলে তারা বলেন, নদীগুলি শুকিয়ে যাওযায় এখন আমাদের বেকারত্বভাবে ঘরে বসে দিনাতিপাত করতে হচ্ছিল। বর্তমান সরকারের নানা উন্নয়নের প্রতিশ্রুতির মাধ্যমে আমরা মৎস বিভাগের পরামর্শে বিভিন্ন উপজেলায় ও গ্রামাঞ্চলে একটি পুকুর প্রায় ১ থেকে দেড় লক্ষ টাকা দিয়ে দেড় বৎসরের চুক্তির বিনিময়ে আমরা তিন জাতের মাছের চাষ করি। তা হলো তেলাপিয়া, রুই ও পাঙ্গাস।

রায়পুরা উপজেলার চরাঞ্চলে ০.৫২ একরের চানপুর পুকুরে চাষ হচ্ছে দেশিয় কার্প মিশ্র মাছ।

সম্প্রতি পোনা ছাড়ে ওই এলাকার বাসিন্দা মোঃ জাহাঙ্গীর আলম। আর এ পুকুরের মাছ বিক্রি করে আড়াই থেকে ৩ লাখ টাকা লাভ করতে পারবেন বলে জানান আশা করছেন তিনি।

এরই মধ্যে আধুনিক পদ্ধতিতে মাছ চাষে সফলতার সাথে মাছ ধরা দেখতে ভীড় করে এলাকা ও দূর-দূরান্ত থেকে আসা লোকজন।

এই নরসিংদী জেলার ৬টি উপজেলায় রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণ পুকুর। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি রয়েছে সদর থানায়। কিন্তু বর্তমানে যেমন দেশিয় মাছের চাহিদা রয়েছে ঠিক তেমনি করে দেশিয় মাছের চাষ করে একদিকে বেকারত্ব দূর হচ্ছে আর অপরদিকে দেশিয় মাছের চাহিদা পূরণ হচ্ছে।