ফের বাড়তে পারে গরুর গোশতের দাম! | |

ফের বাড়তে পারে গরুর গোশতের দাম!

রোজার শুরুতে ৪৮০ টাকা থেকে বেড়ে ৬০০ টাকা এসে থেমেছিলো গোশতের দাম। কিন্তু রোজা শেষ না হতেই শোনা যাচ্ছে ফের গোশতের দাম বাড়ার সম্ভাবনার কথা। রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এ ধরণের তথ্য পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে অভিযোগ করে কাঁঠাল বাগান ঢালের গৃহিনী ফাতেমা আক্তার (৫৭) বিডি২৪লাইভকে বলেন, এভাবে কী পৃথিবীর কোথাও হুট-হাট দাম বাড়ে? যখন যা মন চাচ্ছে তাই করছে ব্যবসায়ীরা! এদেরকে নিয়ন্ত্রণ করতে সরকার পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, কি আর বলব, সরকারের নিজের লোকজন (ব্যবসায়ী) এরা, নয়তো কেন কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না? সাংবাদিক শুনে আরও ক্ষেপে যান তিনি। এবার সাংবাদিকের উপর ঝাড়লেন বাকি রাগটুকু। তিনি রাগী ভাষায় বলেন, আপনার এত কিছু লিখেও তো দেশের মানুষের কোন কাজ হচ্ছে না? সব ফালতু খবর প্রচার করেন। দেশের মানুষের যদি উপকারে নাই আসে, তবে এমন খবর কেন ছাপান?

এদিকে ঈদুল ফিতরের দিন যত ঘনিয়ে আসছে গোশতের দাম আরও বাড়ছে, রাজধানীর কাওরান বাজার, মালিবাগ, খিঁলগাও, নিউমার্কেট, মোহাম্মদপুর বাজার ঘুরে এ চিত্রই দেখা গেছে। তবে সিটি করপোরেশনের বাজার তদারকির দায়িত্বে থাকা বাজার পরিদর্শকদের সাথে যোগাযোগ করা হলে এ বিষয়ে কথা বলতে অপরগাতা প্রকাশ করে উত্তর-দক্ষিণ দুই সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তাগণ।

ভোক্তাদের অভিযোগ সিটি করপোরেশনের বেধে দেওয়া ৫২৫ টাকা দরে রাজধানীর কোথাও গরুর গোশতের খোঁজ মিলছে না। গরুর গোশত এখন সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। সরকারের বেধে দেওয়া দামে রাজধানীর কোন বাজারেই বিক্রি হচ্ছে না গরুর গোশত। অনেক ক্ষেত্রে দেখা গেছে, সরকারের বেধে দেওয়া ৫২৫ টাকা দরের চেয়ে ১০০ টাকা বেশি দরে ৬২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে গরুর গোশত।

গত বুধবার (২৯ মে) রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারে গরুর গোশত বিক্রি হতে দেখা গেছে ৬০০ টাকা কেজি। এছাড়াও বিভিন্ন বাজার ঘুরে জনসাধারণের ক্ষোভের কথাই জানা যায়। বিশেষ করে রোজার শুরুতে গরুর মাংসের উর্ধ্বমুখী দামে শুধু হতাশই নন, ক্ষুব্ধ ক্রেতাসাধারণ। যদিও সিটি করপোরেশন থেকে ৫২৫ টাকা কেজি দরে গরুর গোশত বিক্রির জন্য দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। ছাড়াও রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে সিটি করপোরেশনের ধার্যকৃত মূল্যের চেয়ে কোথাও কোথাও ১০০ টাকা বেশি দরে গোশত বিক্রি করতে দেখা গেছে।