সমৃদ্ধ দেশ গড়তে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করুন | |

সমৃদ্ধ দেশ গড়তে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করুন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশ সার্বিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। যে উন্নয়নের অগ্রযাত্রা শুরু হয়েছে তা অব্যাহত থাকবে। বিশ্ব দরবারে বাঙালি জাতি সম্মানের সঙ্গে মাথা উঁচু করে চলবে। বিশ্বে বাংলাদেশ উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে উঠবে।

দেশবাসীকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ঐক্যবদ্ধভাবে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

রবিবার সকালে গণভবনে আওয়ামী লীগ এবং বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময়কালে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘আমরা আমাদের সকল কর্মের মধ্যদিয়ে দেশ ও জাতির কল্যাণ করে যাবো। বাংলাদেশ হবে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলাদেশ। যে বাংলাদেশের স্বপ্ন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেখেছিলেন।’

জাতীয় সংসদের উপনেতা এবং দলের জ্যেষ্ঠ প্রেসিডিয়াম সদস্য সদস্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, এইচ টি ইমাম, প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম এবং সাহারা খাতুন অন্যান্যের মধ্যে মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর কন্যা এবং বিশ্ব অটিজম আন্দোলনের অগ্রপথিক সায়মা ওয়াজেদ হোসেন এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যরাও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ এবং প্রেসিডিয়াম সদস্যসহ অন্যান্য কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। অনুষ্ঠানে অতিথিদের মোয়া, মুড়কি, মুরলি, কদমা এবং জিলেপি দিয়ে আপ্যায়ন করা হয়।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে অলিম্পিক সভাপতি ও মহাসচিবের সাক্ষাত্

বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ ও মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা গতকাল সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাত্ করেন। তারা দেশের ক্রীড়াঙ্গনের উন্নয়নে আগামী বাজেটে পর্যাপ্ত বরাদ্দ দিতে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের একথা জানান।

আন্তর্জাতিক প্রশিক্ষণ, বিদেশে দল পাঠানোসহ ক্রীড়াঙ্গনের সার্বিক বিষয় নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়। পাশাপাশি ক্রীড়াঙ্গনের বিভিন্ন ডিসিপ্লিনে আগামী জাতীয় বাজেটে যাতে যথেষ্ট বরাদ্দ থাকে সে বিষয়ে তারা প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করেন। প্রেস সচিব বলেন, বৈঠকে তারা বাংলাদেশ দলের বিদেশ সফরসহ দেশের খেলাধুলা ও ক্রীড়ার সার্বিক উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা করেন।

মুক্তিযোদ্ধাদের নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রবিবার বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে দেশের সকল মুক্তিযোদ্ধাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। অন্যান্য উত্সবের মতো বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে শুভেচ্ছার নিদর্শনস্বরূপ প্রধানমন্ত্রী রাজধানী মোহাম্মদপুরের গজনবী রোডে অবস্থিত শহীদ ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা পুনর্বাসন কেন্দ্র (মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ার-১)-এ যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যদের জন্য শুভেচ্ছা উপহার হিসেবে ফুল, ফল ও মিষ্টি পাঠিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব (এপিএস) গাজী হাফিজুর রহমান লিকু, উপ-প্রেস সচিব শাখাওয়াত মুন রবিবার সকালে তাদের কাছে প্রধানমন্ত্রীর এ শুভেচ্ছা উপহার পৌঁছে দেন।

স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, ঈদ ও পহেলা বৈশাখের মতো প্রতিটি জাতীয় দিবস ও উত্সবে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এবং শহীদ পরিবারের সদস্যদের স্মরণ করায় তারা প্রধানমন্ত্রীর প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ও তাঁকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

এছাড়া মোহাম্মদপুরে ১৩ তলাবিশিষ্ট আবাসিক ও বাণিজ্যিক ভবন মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ার-১ নির্মাণসহ যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যদের আবাসনের জন্য নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি তারা গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।