বিদেশি গণমাধ্যমে সেই নাঈম এখন ‘সুপারম্যান’ | |

বিদেশি গণমাধ্যমে সেই নাঈম এখন ‘সুপারম্যান’

রাজধানীর বনানীর কামাল আতাতুর্ক এভিনিউতে এফ আর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দেশবাসি শোকে মুহ্যমান। সে ঘটনায় সেখানে ফায়ার সার্ভিসের লোকজনের সাথে পানির পাইপ ধরে রাখা ছোট্ট একটি শিশুর ছবি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

অধিকাংশ মানুষ যেখানে ছবি তুলতে ব্যস্ত সেখানে ব্যতিক্রম ছিল ছোট্ট শিশুটি। অনেকে ফেসবুকে শিশুটির ছবি শেয়ার দিয়ে তার কাজের প্রশংসা করেছেন।

বাংলাদেশের গরীব পরিবারের সন্তান নাঈম এখন বিশ্ব মিডিয়ায় পরিচিতি পাচ্ছে ‘ছোট্ট সুপারম্যান’ হিসেবে। ওপার বাংলার জনপ্রিয় দৈনিক আনন্দবাজার তাকে নিয়ে ‘ঢাকার রাস্তায় ছোট্ট সুপারম্যান’ শিরোনামে সংবাদ করেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে লাগা আগুন কেড়ে নিয়েছে ২৫টি প্রাণ। আগুন নেভানো এবং উদ্ধার অভিযানে দমকল, পুলিশ তো ছিলই, ছিলেন সেনা, নৌ এবং বিমান বাহিনীর সদস্যরাও। কিন্তু সাধারণ মানুষও যে পিছিয়ে ছিলেন না, সেই ছবি রাতেই ভাইরাল হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। ছোট্ট একটি ছেলে এক দলা প্লাস্টিক নিয়ে লিক বন্ধ করতে বসে রয়েছে দমকলের পানির পাইপের ওপরে। সেই ছবিই কার্টুনে ফিরে আসে, ছোট্ট ছেলেটি যেন সুপারম্যান!

এদিকে শিশু নাঈমের এমন মানবিক কাজে খুশি হয়ে তাকে উপহার স্বরূপ পাঁচ হাজার ডলার প্রদানের ঘোষণা দিলেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী ওমর ফারুক সামি। পাশাপাশি তার যাবতীয় পড়ালেখার দায়িত্ব গ্রহণেরও কথা জানান তিনি।

সিলেটের গোপালগঞ্জ উপজেলার ওমর ফারুক সামি গণমাধ্যমকে জানান, ‘‌আমি নাঈমের কাজে খুবই খুশি হয়েছি। নাঈম খুব কষ্ট করে লেখাপড়া করছে, সে পুলিশ অফিসার হতে চায়। তার ইচ্ছেপূরণ করতে আজ থেকে তার পড়ালেখার দায়িত্ব নিচ্ছি। পর্যায়ক্রমে তার উপহারের পাঁচ হাজার ডলারও প্রদান করব।’

এই বিষয়ে নাঈমের পরিবারের সঙ্গে ইতিমধ্যে আলাপ হয়েছে বলেও জানান এই যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী।

উল্লেখ্য, শিশু নাঈম ইসলাম কড়াইল বস্তি এলাকার বৌ বাজারের রুহুল আমীনের ছেলে। বৌ বাজারের আনন্দ স্কুলে পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ুয়া নাঈম অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় পাইপের লিকেজে পলিথিন পেচিয়ে ধরে বসে ছিল। গতকাল থেকে সামাজিক মাধ্যমে সেই ছবিটি হয়েছে ভাইরাল। প্রশংসায় ভাসছে সে।