রাজধানীতে শান্তিপূর্ণভাবে থার্টি ফার্স্ট নাইট উদযাপন | |

রাজধানীতে শান্তিপূর্ণভাবে থার্টি ফার্স্ট নাইট উদযাপন

শান্তিপূর্ণভাবে থার্টি ফার্স্ট নাইট উদযাপন করেছেন রাজধানীবাসী। কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। পুলিশ সতর্ক অবস্থানে থাকায় কোনো বিশৃঙ্খলা হয়নি বলে দাবি করেছেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গণমাধ্যম শাখার প্রধান মাসুদুর রহমান রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘একে তো ছিল নির্বাচনী নিরাপত্তা। তারপরও থার্টি ফার্স্ট নাইটকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে অতিরিক্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়। বিশেষ করে কূটনীতিকপাড়াকে বিশেষ নজরদারিতে রাখা হয়। সোমবার সন্ধ্যার পর থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পোশাকপরিহিত পুলিশের সঙ্গে সাদা পোশাকের গোয়েন্দারাও ছিল বাড়তি নজরদারিতে।’

সোমবার রাতে গুলশান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিসহ রাজধানীর বেশকিছু এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সন্ধ্যার পর থেকেই বিভিন্ন স্থানে র‌্যাব-পুলিশের টহল চলছিল। বসানো হয়েছিল চেকপোস্ট। সন্দেহভাজন কাউকে দেখলে তল্লাশি করা হয়। যানবাহনেও তল্লাশি করে পুলিশ। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সোয়াট, ডগ স্কোয়াডও প্রস্তুত ছিল।

তবে পুলিশের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কোনো কোনো জায়গায় আতশবাজি ও পটকা ফুটিয়ে স্বাগত জানানো হয় নতুন ইংরেজি বছরকে। তবে রাস্তা বা উন্মুক্ত স্থানে কাউকে জড়ো হতে দেখা যায়নি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় সোমবার সন্ধ্যার পর প্রতিটি গেটে ব্যারিকেড দেওয়া হয় বলে শাহবাগ থানার অফিসার ইনচাজ্ (ওসি) আবুল হাসান নিশ্চিত করেন। তবে বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে ছোট্ট পরিসরে অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।

এর আগে থার্টি ফার্স্ট নাইটকে ঘিরে সুনির্দিষ্ট হুমকি না থাকলেও বেশকিছু নির্দেশনা দেয় পুলিশ। এসব নির্দেশের মধ্যে ছিল- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুমোদিত স্টিকারযুক্ত গাড়ি প্রবেশ করতে পারবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররাও আইডি কার্ড দেখিয়ে প্রবেশ করবে। বাইরে কোনো ডিজে পার্টি, ছাদ বা উন্মুক্ত স্থানে অনুষ্ঠান করা যাবে না।