নির্বাচনে জয়ের পরপরই প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন চীনের | |

নির্বাচনে জয়ের পরপরই প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন চীনের

এবার আর ২০১৪ সালের পথে হাঁটেনি চীন। ওই নির্বাচনের এক সপ্তাহ পর আওয়ামী লীগ সরকারকে অভিনন্দন জানিয়েছিল বেইজিং। গতকাল রবিবার (৩০ ডিসেম্বর) অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় নির্বাচনের ফল ঘোষণার ১২ ঘণ্টারও কম সময়ের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানালেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ও প্রধানমন্ত্রী লি কেসিয়াং।
ঢাকায় নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত ঝ্যাং ঝু সোমবার (৩১ ডিসেম্বর) সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে চীনা প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছাবার্তা পৌঁছে দেন।
অবশ্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে প্রথম অভিনন্দন জানায় ভারত সরকার। সোমবার সকালে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ফোন করে শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানান।
রবিবার অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ এককভাবে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে। এর ফলে টানা তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠন করতে যাচ্ছে দলটি।
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন হয় ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি। দেশের অন্যতম বড় দল বিএনপি তাতে অংশগ্রহণ না করায় আওয়ামী লীগের দেড় শতাধিক প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।
ওই নির্বাচনের এক সপ্তাহ পর ১২ জানুয়ারি ঢাকায় নিযুক্ত তৎকালীন চীনের রাষ্ট্রদূত লি জুন প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দনবার্তা পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হকের কাছে হস্তান্তর করেছিলেন।
সাবেক পররাষ্ট্র সচিব মোহাম্মাদ তৌহিদ হোসেন  বলেন, ‘উভয় দেশেরই (ভারত ও চীন) বাংলাদেশে অনেক স্বার্থ আছে। চীনের অর্থনৈতিক স্বার্থ অনেক বড়। এখানে আবার ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং অন্যান্য যেকোনও দেশের সম্পর্কের থেকে তাদের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক ভিন্ন।’
এশিয়ার বড় দুটি দেশ অভিনন্দনবার্তা জানানোয় সরকার কিছুটা স্বস্তির মধ্যে আছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘বিজয়ীকে অভিনন্দনবার্তা জানানো সাধারণ ভদ্রতা এবং আমার ধারণা, অন্যরাও শুভেচ্ছাবার্তা পাঠাবে।’
চীনে নিযুক্ত বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত মুন্সি ফায়েজ আহমেদ বলেন, ‘ভারত ও চীন এখানকার সমস্যা নিয়ে চিন্তিত নয়।’ তিনি বলেন, ‘নতুনদের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করেই তারা খুশি। কারণ, তারা তাদের সহযোগিতা চালু রাখতে চায় এবং এটিকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে চায়।’
সাবেক এই রাষ্ট্রদূত আশা প্রকাশ করে বলেন, ‘অন্য দেশগুলিও নতুন সরকারকে অভিনন্দন জানাবে।’
তবে তিনি বলেন, ‘অনেকে আছে যারা অভিনন্দন জানায় এবং একইসঙ্গে বিভিন্ন প্রশ্ন করে। তবে ভারত ও চীন ওই দলে পড়ে না।’
চীনের রাষ্ট্রদূত ঝ্যাং ঝু সকালে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে চীনের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছাবার্তা পৌঁছে দেন। একইসঙ্গে তিনি ক্রিস্টালের তৈরি একটি ‘নৌকা’ প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দেন।