গুজব সঠিক কিনা আগে যাচাই করুন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী | |

গুজব সঠিক কিনা আগে যাচাই করুন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

গুজব বা বিভ্রান্তিকর তথ্য শান্তির পরিস্থিতি মুহূর্তেই বিশৃঙ্খলতায় রুপ দেয়। তাই, ইন্টারনেট কিংবা যেকোনো মাধ্যমে ছড়ানো গুজব প্রতিরোধে তথ্য সঠিক কিনা তা যাচাইয়ের আহ্বান জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

তিনি বলেন, ‘গুজব দিয়াশলাই আগুনের মত ভয়ংকর। একটা দিয়াশলাইয়ের আগুন যেভাবে সবকিছু মুহুর্তে ধ্বংস করে দিতে পারে, তেমনি গুজবও ভয়ংকর। একটা বিভ্রান্তিকর তথ্য কিংবা গুজব মুহূর্তেই বিশৃঙ্খলতায় রুপ দেয়।’

বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) সকালে কারওয়ানবাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে “মিথ্যা রুখো, সত্য জানো” স্লোগানে গুজববিরোধী একটি জনসচেতনতামূলক বিজ্ঞাপনের (টিভিসি) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমরা রামুর কথা ভুলিনি, নাসিরনগরের কথাও ভুলিনি। সম্প্রতি আমাদের ছোটছোট কোমলতি শিশুরা যে অধিকার নিয়ে রাস্তায় নেমেছিল এবং সেটিও গুজবের মাধ্যমে বিভ্রান্ত করা হয়েছে। ফলে, দেশ জুড়ে একটা বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চেয়েছিল কতিপয় স্বার্থান্বেষী মহল। কিন্তু আমাদের অত্যন্ত দক্ষ চৌকশ টিম র‌্যাবের সদস্যরা এসব গুজব ঠেকাতে সচেষ্ট রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, দেশে যখন কোনো বিশৃঙ্খলতার বিপর্যয় এসে যায় তখনি র‌্যাব সেটি মোকাবেলায় নেমে যায়। আপনারা দেখেছেন দেশে জলদস্যূ, জঙ্গিবাদ, মাদক নিয়ন্ত্রন সবই র‌্যাব সফলভাবে প্রতিরোধ করেছে। আজকে তারই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব এখন গুজববিরোধী কাজে সচেষ্ট হচ্ছে।

আইজিপি ড. মোঃ জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, আমরা দেখেছি র‌্যাব জঙ্গিবাদবিরোধী টিভিসি, মাদকবিরোধী টিভিসি তৈরি করেছে। এখন গুজবের বিরুদ্ধে টিভিসি তৈরি করেছে। এটা ভালো উদ্যোগ। আপনারা দেখেছেন রামুর একটা ঘটনায় গুজবের কারণে সংঘর্ষ কতটুকু ছড়িয়ে পড়েছিল। আবার দেখেছেন শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময়ও একইভাবে গুজব ছড়িয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছিল। গুজব রোধের মাধ্যমে সামাজিক শান্তি বজায় রাখা যায়। তাই, র‌্যাবের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। নিঃসন্দেহে এটা ভালো কাজ।

টিভিসি উদ্বোধনের সময় র‌্যাব ডিজি বেনজির আহমেদ বলেন, গত দশ বছরে বাংলাদেশে ইন্টারনেট বিপ্লব ঘটে গেছে। সাত কোটি মানুষ মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। কিন্তু আমরা দুঃখের সঙ্গে দেখছি কতিপয় ব্যক্তি উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে গত তিন-চার মাস ধরে লক্ষনীয়ভাবে ইন্টারনেটে গুজব ছড়াচ্ছে। কিন্তু কতিপয় ব্যক্তির জন্য আমাদের উন্নয়ন যাত্রা থেমে যাবে না। ডিজিটাল বিপ্লবকে আমাদের সামনে নিয়ে যেতে হবেই। তবে, বাঁধাগুলোকে আমরা প্রতিরোধে সচেষ্টভাবে কাজ করবো দেশের সকল মানুষেকে সঙ্গে নিয়ে।

তিনি বলেন, গুজব ছড়ানোর অপরাধে এ পর্যন্ত আমরা ১৩২ জনকে গ্রেফতার করেছি। গতকাল রাতেও আমরা ৬ জনকে গ্রেফতার করেছি। এসব অপরাধ কর্মকান্ড যারা ঘটাচ্ছে তাদের কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। আইনের আওতায় আনবোই।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন বলেন, গুজব কিন্তু ফোজদারী অপরাধ। ডিজিটাল বাংলাদেশ মানে ইন্টারনেটে অপকর্ম করবে আর গুজব ছড়াবে তা কিন্তু নয়। যারা এসব কাজ করছে, তারা কিন্তু মানুষের কাছে হাসির পাত্র। যারা এসব অপকর্ম করছে র‌্যাব তাদেরকে আইনের আওতায় নিয়ে আসছে।