অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে মাঠে নামবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী | |

অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে মাঠে নামবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। শিগগিরই অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে মাঠে নামবেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

সূত্র জানায়, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পুলিশ সদর দপ্তরসহ সংশ্লিষ্টদের প্রস্তুত থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। নির্দেশনা পেলেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বিশেষ অভিযান চালাবে।

পুলিশ সদর দপ্তরের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে অবৈধ অস্ত্র ব্যবসায়ীদের তালিকা তৈরি করেছে একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা। অস্ত্র ব্যবসায়ীদের ওপর নজরদারিরসহ অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে দেশব্যাপী অভিযান শুরুর প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। নির্দেশনা পেলে শুরু করবে অভিযান।

তিনি আরো বলেন, রাজধানী ঢাকায় তিন শতাধিক অবৈধ অস্ত্রধারী রয়েছে। এসব অস্ত্রধারী অস্ত্র বেচাকেনার পাশাপাশি সারা দেশে চাহিদা অনুযায়ী ভাড়া দিয়ে থাকে। নির্বাচন আসলেই অস্ত্রের চাহিদা বেড়ে যায়। ভাড়া নিতে আগ্রহী হয়ে ওঠে দেশের বিভিন্ন এলাকার দলীয় ক্যাডাররা। নির্বাচনে নিজেদের আধিপত্য বিস্তারের ক্ষেত্রে এসব অস্ত্র ব্যবহার করা হয়। ভাড়ায় অস্ত্র নিতে আগ্রহীদের সংখ্যা সব জাতীয় নির্বাচনের আগে বেড়ে যায়। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখেও এসব অস্ত্র হাতবদল হওয়ার আশঙ্কা করছেন গোয়েন্দারা।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, নির্বাচন কমিশন গত ১২ ডিসেম্বর অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার এবং বৈধ অস্ত্রের ব্যবহার সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা দিয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে শিগগিরই এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

সূত্র জানায়, সারা দেশে পাঁচ শতাধিক অবৈধ অস্ত্র ব্যবসায়ী রয়েছে। অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র আছে ৪ লাখের বেশি। তাছাড়া, দেশের বিভিন্ন স্থানে মজুত করা হয়েছে বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক দ্রব্য। সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এসব অবৈধ অস্ত্র ও বিস্ফোরকের মাধ্যমে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি ঘোলাটে করতে পারে। এছাড়া, বৈধ অস্ত্রেরও হতে পারে অপব্যবহার। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নির্দেশনা পেলেই এ অভিযান শুরু করবে।

পুলিশ সদর দপ্তরের সূত্র জানায়, গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে ১৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সারা দেশে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হয়েছে। ওই অভিযানে সারা দেশে ৪৭১টি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। এসব অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় দেশের বিভিন্ন থানায় মোট ২১২টি মামলায় ৩০৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পুলিশ সদর দপ্তরের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) এস এম রুহুল আমীন বলেন, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে আমাদের নিয়মিত অভিযান অব্যাহত রয়েছে। মাঝেমাঝেই অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী, অস্ত্র ব্যবসায়ীদের গুলি এবং আগ্নেয়াস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার অনেকাংশে কম বলে জানান তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, আজ বা কালের মধ্যেই অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের নির্দেশনা ও বৈধ অস্ত্র ব্যবহারের নীতিমালা বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

তিনি বলেন, এখন থেকে বৈধ অস্ত্র বহন ও প্রদর্শন করা যাবে না। তবে সংসদ নির্বাচনের প্রার্থীরা বৈধ অস্ত্র বহন করতে পারবেন, কিন্তু প্রদর্শন করতে পারবেন না। যে কেউ প্রয়োজনে থানায় অস্ত্র জমা দিয়ে রাখতে পারবেন।

মন্ত্রী বলেন, নির্বাচন উৎসবে পরিণত হবে। নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করে যারা অস্থিরতা করছে। তাদের বিচারের মুখোমুখি করা হবে।