ভেড়ামারায় একই পরিবারের তিনজনের যাবজ্জীবন | |

ভেড়ামারায় একই পরিবারের তিনজনের যাবজ্জীবন

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় যুবক হত্যার দায়ে একই পরিবারের তিনজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। দণ্ডপ্রাপ্তরা সম্পর্কে মা-ছেলে-পুত্রবধূ। বৃহষ্পতিবার দুপুর ২টার দিকে কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক অরূপ কুমার গোস্বামী জনাকীর্ণ আদালতে আসামিদের উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, ভেড়ামারা উপজেলার সাতবাড়িয়া হিসনাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মৃত নাগর মিস্ত্রীর ছেলে আব্দুল মান্নান (৫৫), আসামি আব্দুল মান্নানের স্ত্রী মেরিনা খাতুন (৪৫) এবং আসামি আব্দুল মান্নানের মাতা মর্জিনা খাতুন (৭২)। এছাড়া এ মামলার অপর আসামি হযরত আলীকে বেকশুর খালাস দিয়েছেন আদালত।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের ২৪ আগষ্ট দুপুরে ভেড়ামারা উপজেলার সাতবাড়িয়া হিসনাপাড়া গ্রামের রাস্তা দিয়ে নিহত যুবক খায়রুলের ভাই শাহিন কাঁচাপাট বোঝাই ট্রলি চালিয়ে যাওয়ার সময় পিছনে কয়েকজন শিশু ঝুলছিলো। শাহিন ট্রলি দাঁড় করিয়ে ওই বাচ্চাদের বকাবকি করায় আসামিরা যোগসাজসে ট্রলি চালককে ঘরে আটকিয়ে মারধর করতে থাকে। সংবাদ পেয়ে শাহিনের পারিবারে সদস্যরা ছাড়িয়ে নিতে ঘটনাস্থলে আসে। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে আসামিরা তাদের উপর চড়াও হয় এবং লাঠিসোটা নিয়ে হামলা করে মারধর করে। এ ঘটনায় শাহিনের ছোট ভাই খায়রুল গুরুতর জখমসহ আঘাতপ্রাপ্ত হন। আহত খায়রুলকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় নিহতের বড়ভাই উপজেলার দক্ষিণ ভবানীপুর গ্রামের মৃত তালিম উদ্দিন মণ্ডলের ছেলে আমিরুল ইসলাম বাদী হয়ে ৪ জনকে আসামি করে ভেড়ামারা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ১৩, তারিখ ২৪/০৮/২০১৩, ধারা ৩২৫/৩০২/৩৪ দ:বি:। মামলাটি তদন্ত শেষে ২০১৫ সালে ১৭ জানুয়ারি আদালতে চার্জশীট দাখিল করে পুলিশ। আদালত ২০১৫ সালের ৬ মে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে স্বাক্ষ্য শুনানী শুরু করেন।

কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী জানান, পুলিশের দেওয়া তদন্ত প্রতিবেদনে বিজ্ঞ আদালত দীর্ঘ স্বাক্ষ্য শুনানী শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে যুবক খায়রুল হত্যার অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় একই পরিবারের তিন আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন। রায় ঘোষণার সময় দন্ডপ্রাপ্ত আসামিরাসহ খালাসপ্রাপ্ত আসামিও আদালতে উপস্থিত ছিলেন।