ভাতা বিতরণে জবাবদিহিতা আনতে বিশ্বব্যাংকের ৩০ কোটি ডলার সহায়তা | |

ভাতা বিতরণে জবাবদিহিতা আনতে বিশ্বব্যাংকের ৩০ কোটি ডলার সহায়তা

সুবিধাবঞ্চিত মানুষের কাছে আর্থিক সহায়তা পৌঁছে দেয়ার কাজে স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা আনতে ৩০ কোটি ডলার দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় এ সহায়তা দেয়া হবে।

বর্তমান বিনিময় হার অনুযায়ী বাংলাদেশি মুদ্রায় এর পরিমাণ প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকা।

রোববার বিশ্ব ব্যাংক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) মধ্যে এ বিষয়ে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

বিশ্ব ব্যাংকের পক্ষে আবাসিক প্রতিনিধি চিমিয়াও ফান এবং বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে ইআরডির অতিরিক্ত সচিব মাহমুদা বেগম চুক্তিতে সই করেন।

ছয় বছরের রেয়াতকালসহ ৩৮ বছরে শূন্য দশমিক ৭৫ শতাংশ সুদসহ ওই অর্থ পরিশোধ করতে হবে।

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে জানানো হয়, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় দরিদ্র, বয়স্ক, বিধবা ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের কাছে সরকারি ভাতা পৌঁছানোর জন্য সরকার ক্যাশ ট্রান্সফার মডার্নাইজেশন শীর্ষক একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে।

সেখানে স্বচ্ছতা, দক্ষতা ও জবাবদিহিতা আরও উন্নত করতে বিশ্ব ব্যাংকের ওই অর্থ ব্যয় হবে।

প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে সমাজ সেবা অধিদফতর। চার শ্রেণির সুবিধাবঞ্চিত মানুষ এ প্রকল্পের মাধ্যমে ভাতা পাবেন।

বয়স্কভাতা, বিধবা ও স্বামী নিগৃহীত নারী, অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধী এবং প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য নগদ সহায়তা দেয়া হবে এর আওতায়।

অতিরিক্ত সচিব মাহমুদা বেগম চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বলেন, দেশে ঝুঁকিপূর্ণ ও হতদরিদ্র মানুষকে যে ভাতা দেয়া হয়, তাতে স্বচ্ছতা ও দক্ষতা বাড়াবে এ প্রকল্প।

২০১৫ সালে জাতীয় নিরাপত্তা কৌশল প্রণয়নের পর এ প্রকল্প হাতে নেয়া হয়, যাতে সুবিধাভোগীরা কম সময়ে ও ঝামেলাহীনভাবে তাদের ভাতা হাতে পান।

বিশ্ব ব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি চিমিয়াও ফান অনুষ্ঠানে বলেন, বাংলাদেশের জন্য বিশ্ব ব্যাংক গত অর্থবছরে তিন বিলিয়ন ডলারের ঋণ অনুমোদন দিয়েছে। চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম চার মাসেই এক বিলিয়ন ডলার অনুমোদন দিয়েছে।