ইভিএম ও স্যাটেলাইট ফোন ব্যবহার করতে টাকা চায় ইসি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম’র সাথে স্যাটেলাইট ফোন বা ডিজটাল মোবাইল রেডিও কমিউনিকেশন সিস্টেম (ওয়াকিটকি) ব্যবহার করতে টাকা চেয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এই দুই প্রযুক্তি ব্যবহার করতে সরকারের কাছে অতিরিক্ত ২ হাজার ৫২ কোটি টাকা বরাদ্দ চেয়ে অর্থ সচিব আব্দুর রউফ তালুকদারের কাছে চিঠি পাঠায় ইসি।

ইসি থেকে অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) পাশাপাশি স্যাটেলাইট ফোন বা ডিজিটাল মোবাইল রেডিও কমিউনিকেশন সিস্টেম (ওয়াকিটকি) ব্যবহার করতে চায় ইসি। এই দুই পদ্ধতি ব্যবহার করতে হলে ইসির আরও দুই হাজার ৫২ কোটি টাকা প্রয়োজন।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের আওতায় ‘ইউজ অব ডিজিটাল মোবাইল রেডিও কমিউনিকেশন সিস্টেমস (ওয়াকিটকি) ইন ইলেকশন’ শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে চিঠিতে বলা হয়েছে, পরিকল্পনা কমিশন এরই মধ্যে প্রকল্পটিতে নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে। প্রকল্পটির জন্য চীন সরকারের ৫৩ কোটি টাকা অনুদান পেতে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের মাধ্যমে ঢাকায় চীনা দূতাবাসে চিঠি পাঠানো হয়েছে বলেও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, মধ্যমেয়াদি বাজেট কাঠামোর (এমটিবিএফ) আওতায় নির্বাচন কমিশনের প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এক হাজার ১৪৫ কোটি ৭৫ লাখ টাকা পর্যন্ত সিলিং ঠিক করা হয়েছে। ফলে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সীমিত সংখ্যক আসনে ভোটগ্রহণ ও ফলাফল প্রকাশ করতে ইভিএম ও ওয়াকিটকি ব্যবহার করতে মধ্যমেয়াদি বাজেট কাঠামোর আওতায় ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মোট ২ হাজার ৫২ কোটি টাকা অতিরিক্ত বরাদ্দ প্রয়োজন।