রিমান্ড শেষে কারাগারে প্রধান নৌ প্রকৌশলী নাজমুল

নৌ-পরিবহন অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী ড. এস এম নাজমুল হককে এক দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

রিমান্ড শেষে সোমবার হাজির করা হলে ঢাকা মহানগর হাকিম এএইচএম তোয়াহা তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

গত ১২ এপ্রিল রাজধানীর সেগুনবাগিচায় সেগুন রেস্তোরাঁ থেকে ঘুষের ৫ লাখ টাকাসহ নাজমুলকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করে দুদকের পরিচালক নাসিম আনোয়ারের নেতৃত্বাধীন একটি দল।

রিমান্ড ফেরত প্রতিবেদনে দুদকের সহকারী পরিচালক আবদুল ওয়াদুদ উল্লেখ করেন, রিমান্ডে তিনি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন। যা যাচাই বাচাই করা হচ্ছে। আসামি জামিন পেলে পলাতক হওয়ার এবং আলামত বিনষ্ট করণসহ মামলার তদন্তে বিঘœ সৃষ্টি করতে পারেন।

মামলায় আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগে বলা হয়, মেসার্স সৈয়দ শিপিং লাইনসের এমভি প্রিন্স অব সোহাগ নামীয় যাত্রীবাহী নৌযানের রিসিভ নকশা অনুমোদন এবং নতুন নৌযানের নামকরণের অনাপত্তিপত্রের জন্য নাজমুল হক ১৫ লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেন। বিষয়টি দুর্নীতি দমন কমিশনকে অবহিত করা হলে দুদক সকল বিধি-বিধান অনুসরণ করে কমিশনের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক নাসিম আনোয়ারে নেতৃত্বে ফাঁদ মামলা পরিচালনার অনুমতি দেয়।

১২ এপ্রিল বিকেল পৌনে ৬টায় ঘুষের টাকার কিস্তি বাবদ ৫ লাখ টাকা রাজধানীর সেগুন হোটেলে বসে যখন নাজমুল হক গ্রহণ করছিলেন, ঠিক তখনই ওঁৎ পেতে থাকা দুদকের বিশেষ দলের সদস্যরা ঘুষের টাকাসহ তাকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করেন।

এরপর রাজধানীর রমনা মডেল থানায় দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১ এর সহকারী পরিচালক আবদুল ওয়াদুদ বাদী হয়ে এ বিষয়ে মামলা দায়ের করেন।

এর আগে একইভাবে গত বছরের ১৮ জুলাই নৌ-পরিবহন অধিদপ্তরের তৎকালীন প্রধান প্রকৌশলী ফখরুল ইসলামকেও ঘুষসহ গ্রেপ্তার করেছিল দুদক।