ব্যবসার জন্য নতুন অ্যাকসিলারেটর চালু | |

ব্যবসার জন্য নতুন অ্যাকসিলারেটর চালু

বাংলাদেশের ক্ষুদ্র ও বর্ধনশীল ব্যবসার (এসজিবি) জন্য একবছর মেয়াদি বিনিয়োগ প্রস্তুতিমূলক অ্যাকসিলারেটর কর্মসূচি ‘স্কেইলআপ বাংলাদেশ’ চালু হয়েছে। রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টার ইনে বৃহস্পতিবার এই কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন আইএফসি সাউথ এশিয়া’র অপারেশন্স অফিসার ও পিপিসিআর’র প্রজেক্ট লিড হারশ বিবেক, বেটারস্টোরিজ লিমিটেডের চিফস্টোরি টেলার মিনহাজ আনওয়ার, গ্রামীনফোনের চিফ ট্রান্সফরমেশন অফিসার কাজী মাহবুব হাসান, ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাসের ডেপুটি চিফ অব মিশন জোয়েল রিফম্যান এবং বাংলাদেশ স্টার্টআপ কাপ ২০১৭-র খুলনা বিভাগের বিজয়ী শারমিন সুলতানা।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, এসএমই বাংলাদেশের অর্থনীতির মেরুদন্ড। তাদের নিয়ে কাজ করা নিঃসন্দেহে একটি অসাধারণ উদ্যোগ। আমি আশা করছি, স্কেইলআপ বাংলাদেশ এর মাধ্যমে বেটারস্টোরিজ লিমিটেড এভাবে সমাজের ভাল গল্পগুলো সামনে নিয়ে আসবে।

বেটারস্টোরিজের চিফ স্টোরি টেলার মিনহাজ আনওয়ার বলেন, স্কেইলআপ বাংলাদেশ একেবারে নতুন একটি অ্যাকসিলারেটর কর্মসূচি। বাংলাদেশের ক্ষুদ্র ও বর্ধনশীল ব্যবসার জন্য বিশেষ সহায়ক এই কর্মসূচি তাদের সক্ষমতা এবং সম্ভাবনাকে বৃদ্ধি করবে।

ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কর্পোরেশন (আইএফসি) এর সহায়তায় বাংলাদেশের ক্ষুদ্র কিন্তু বর্ধনশীল ব্যবসার জন্য এই কর্মসূচির আয়োজক বেটারস্টোরিজ। সাথে রয়েছে আভিস্কার, গ্রামীণফোন অ্যাকসিলারেটর, ব্রিটিশ কাউন্সিল, পামএনএল এবং ক্লাইমেট বিজনেস ইনোভেশন নেটওয়ার্ক (সিবিআইএন)।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ভৌগলিক অবস্থান ও সীমিত ভোক্তাশ্রেণীর বাইরে নিজেদের ব্যবসার পরিধি অতিক্রম করার জন্য প্রয়োজন অর্থের। এক্ষেত্রে নিজেদের ছাড়িয়ে যাওয়ার প্রবল স্পৃহা রয়েছে এমন ২৫টি বাণিজ্যিকভাবে টেকসই ব্যবসা, যাদের প্রত্যেকের ৫-২০০ কর্মচারী রয়েছে তারা এই কর্মসূচিতে মনোনীত হবেন। স্কেইলআপ বাংলাদেশ শিরোনামের এই অ্যাকসিলারেটর কর্মসূচিতে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে (www.scaleupbangladesh.com) আবেদন করা যাবে ২১ মার্চ ২০১৮ পর্যন্ত।

মনোনীত ব্যবসা উদ্যোগগুলোর জন্য ৩ সপ্তাহের বুটক্যাম্প করবে স্কেইলআপ বাংলাদেশ। পণ্যের বাস্তবতা যাচাই, ব্র্যান্ডিং পরিমার্জন এবং ডিজিটাল ফুট প্রিন্ট, আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধি ও বিনিয়োগ উপযোগী গ্রহণযোগ্য পরিকল্পনা তৈরিতে সহায়তা দেয়া হবে এই বুটক্যাম্পে। পরবর্তী ৭ মাসে তাদের যোগাযোগ করিয়ে দেয়া হবে পামএনএল এর কারিগরি বিশেষজ্ঞ, সিবিআইএন-এর জলবায়ু পরামর্শক এবং সারাবিশ্বের বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে।