শাহজালালে জব্দ বিপুল বিপন্ন পাখি ও বণ্যপ্রাণী | |

শাহজালালে জব্দ বিপুল বিপন্ন পাখি ও বণ্যপ্রাণী

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিপুল সংখ্যক বিপন্ন পাখি ও বণ্যপ্রাণী উদ্ধার করেছে শুল্ক গোয়েন্দা ও ঢাকা কাস্টম হাউস।

সোমবার (৬ আগস্ট) রাত সাড়ে ১১টার দিকে পাখিগুলো উদ্ধার হয়। শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরে মহাপরিচালক ড. মো. শহিদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

শুল্ক গোয়েন্দা ও ঢাকা কাস্টম হাউস জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তারা অভিযান চালায়। অভিযানে জব্দ করা হয় মোট ২০২ জোড়া বিপন্ন পাখি ও বণ্যপ্রাণী। যার মধ্যে ছিল_ ১৭০ জোড়া লাভ বার্ড, ৩ জোড়া বেবি প্যারেট, ৩ জোড়া কোকাটেল (কাকাতুয়া), ১০ জোড়া কনুর, ৩ জোড়া ময়ুর, ১ জোড়া এরা এ্যারোনা, ৫ জোড়া গ্রীন উইং প্যারাকিট, ২ জোড়া এ্যারাউনা, ২ জোড়া বাজ্রিগার, ১ জোড়া লামুর র‌্যাবিট ও ২ জোড়া মারমুস র‌্যাবিট।

সংস্থাটি জানায়, আন্তর্জাতিক কনভেনশন ‘সিআইটিইএস’ অনুসারে বিপন্ন তালিকাভুক্ত প্রাণীদের আমদানির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নন-ডেট্রিমেন্টাল রিপোর্ট ও বণ্য প্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন, ২০১২ অনুযায়ী জীবন্ত পশু-পাখি আমদানিতে বন অধিদপ্তরের অনাপত্তি (এনওসি) লাগে। কিন্তু জব্দ পাখি ও বণ্যপ্রাণীগুলোর ক্ষেত্রে সে নিয়ম মেনে আমদানি না করা হয়নি। জব্দ পাখি ও বণ্যপ্রাণীগুলোর বাজারমূল্য প্রায় ৪৪ লক্ষ টাকা।

সংস্থাটি আরো জানায়, কার্গো ভিলেজে অতিরিক্ত গরমে পাখি ও বণ্যপ্রাণীগুলো মুমূর্ষু হয়ে যায়। এ কারণে এগুলো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কের খাঁচায় সংরক্ষণের জন্য বন অধিদপ্তরের কাছে হস্তান্তর হয়। আমদানিকারকের বিরুদ্ধে শুল্ক আইনসহ অন্যান্য আইন লংঘনের কারণে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।