তৃপ্তিকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ | |

তৃপ্তিকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ড. আফতাব আহমেদ হত্যা মামলার আসামি বিএনপির সাবেক নেতা মো. মফিকুল হাসান তৃপ্তিকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (৯ আগস্ট) তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম ফাহাদ বিন আমিন চৌধুরীর আদালতে তোলা হলে আদালত রিমান্ড ও জামিনের বিষয়ে আদেশ না দিয়ে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। সেই সঙ্গে রিমান্ড ও জামিন শুনানির জন্য আগামী ১৩ আগস্ট ধার্য করেন।

এর আগে মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশের পরিদর্শক সুব্রত কুমার সাহা। আবেদনে বলা হয়, মামলার আসামি সানজিদুল হাসান ইমন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে তৃপ্তির কথা বলেছেন। ইমন ২০০৮ সালের ১০ এপ্রিল এই জবানবন্দি দেন। তাই ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটনের জন্য তৃপ্তির ১০ দিনের রিমান্ড দরকার।

অপরদিকে আসামি পক্ষের আইনজীবী মাসুদ আহম্মদ তালুকতার রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। শুনানিতে তিনি বলেন, হাইকোর্টে কোনো মামলায় তৃপ্তিকে হয়রানি না করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ মামলায় তাকে রিমান্ড দিলে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অমান্য করা হবে।

এসময় আদালত রিমান্ড ও জামিনের বিষয়ে কোনো আদেশ না দিয়ে আসামিকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। সেইসঙ্গে শুনানির জন্য আগামী ১৩ আগস্ট দিন নির্ধারণ করেন।

সাবেক সংসদ সদস্য তৃপ্তিকে বুধবার (৮ আগস্ট) রাজধানীর একটি বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে সিআইডির ঢাকা মেট্রো দক্ষিণ বিভাগের কোতয়ালী ইউনিট।

উল্লেখ্য, ২০০৬ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর রাতে রাজধানীর ফুলার রোডে বিশ্ববিদ্যালয় কোয়ার্টারের নিজ বাসায় অধ্যাপক আফতাবকে গুলি করে দুর্বৃত্তরা। এর তিন দিন পর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী শাহবাগ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

১২ বছর পর ওই হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে সাবেক সাংসদ মফিকুল হাসান তৃপ্তিকে গ্রেপ্তার করলো পুলিশ। বিএনপির এক সময়ের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক তৃপ্তি যশোরের শার্শা থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। জরুরি অবস্থার পর ২০০৮ সালে ‘সংস্কারপন্থী’ হিসেবে চিহ্নিত হওয়ায় তাকে দল থেকে বহিষ্কার করেছিল বিএনপি।