বরিশাল, সিলেট, রাজশাহীতে ভোটের আনুষ্ঠানিকতা ‍শুরু | |

বরিশাল, সিলেট, রাজশাহীতে ভোটের আনুষ্ঠানিকতা ‍শুরু

জাতীয় নির্বাচনের আগে যে পাঁচ মহানগরে ভোট হতে যাচ্ছে তার মধ্যে বরিশাল, সিলেট, রাজশাহীতে আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে।

তিন মহানগরেই এখন থেকে আগ্রহী প্রার্থীরা রিটার্নিং কর্মকর্তার দপ্তর থেকে মনোনয়নপত্র কিনতে পারবেন।

তিন মহানগরেই ভোট, মনোনয়নপত্র সংগ্রহ, যাচাই বাছাই, প্রত্যাহার, প্রতীক বরাদ্দের তারিখ গত ২৯ মে জানিয়ে দিয়েছিল নির্বাচন কমিশন। তবে তফসিল ১৩ জুন থেকে কার্যকর হবে-সেটাও জানিয়ে দেয়া হয় সেদিন।

বুধবার আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে নিজ কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিক তফসিল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।

নিয়ম অনুযায়ী তফসিল ঘোষণার দিন থেকে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র বিতরণ হয়।

ইসি সচিব জানান, রাজশাহী, সিলেট ও বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মনোনয়ন দাখিলের শেষ সময় ২৮ জুন। যাচাই-বাছাই হবে ১ ও ২ জুলাই, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ৯ জুলাই, ভোটগ্রহণ হবে ৩০ জুলাই।

সচিব জানান, রাজশাহী, সিলেট ও বরিশালে রিটার্নিং কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয়েছে। রাজশাহী ও বরিশালে ১০ জন করে এবং সিলেট সিটি করপোরেশনে নয় জন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করবেন।

রাজশাহীতে রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা সৈয়দ আমিরুল ইসলাম। সিলেটে আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা আলীমুজ্জামান এবং বরিশালে আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মুজিবুর রহমানকে রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন।

তিন সিটি নির্বাচনে মেয়রের পাশাপাশি সাধারণ ও সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডেও ভোট হবে ৩০ জুলাই।

নারায়ণগঞ্জ, কুমিল্লা, রংপুর ও সিলেটের মতো এই তিন মহানগরেও মেয়র প্রার্থীরা তাদের দলীয় প্রতীকে ভোটে অংশ নেবেন। অর্থাৎ আগামী ডিসেম্বর বা জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগের নৌকা এবং বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকে লড়াই দেখা যাবে আবার।

এই তিন সিটিতে সব শেষ ভোট হয়েছিল ২০১৩ সালে। তিনটিতেই বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা জিতেছিলেন।

ওই বছরেই ভোট হওয়া খুলনা সিটি করপোরেশনে জয় পাওয়া বিএনপি এবার দলীয় প্রতীকে হওয়া প্রথম সিটি নির্বাচনে হেরে গেছে গত ১৫ মে। আর গাজীপুরে ভোট হবে ২৬ জুন।

সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আচরণবিধি সংশোধন করে সংসদ সদস্যদের প্রচারে সুযোগ দেয়ার যে সিদ্ধান্ত হয়েছে তা তিন সিটি নির্বাচনে কার্যকর হবে কি না, সেটি নিশ্চিত করতে পারেননি ইসি সচিব।

এ সংক্রাস্ত প্রশ্নের জবাবে হেলালুদ্দীন বলেন, ‘এটা পরবর্তীতে আপনাদের জানানো হবে। আজ শুধু তফসিল ঘোষণা করা হলো।’