গরমে শিশুর যত্ন | |

গরমে শিশুর যত্ন

কাঁঠাল পাকা গরম এখন! কিন্তু মাঝেমধ্যেই প্রচণ্ড গরম ছাপিয়ে ওঠে কালবৈশাখী। দ্রুত নেমে যায় তাপমাত্রা। তাপমাত্রার এই ব্যাপক তারতম্যের প্রথম শিকার হয় শিশুরা। বয়স্করা এই আবহাওয়ায় নিজেকে দ্রুত মানিয়ে নিতে পারলেও শিশুরা অনেক সময়ই পেরে ওঠে না। ফলাফল জ্বর, পেট খারাপ, সর্দি, কাশিসহ নানা শারীরিক অসুবিধা। তাই এই গরমে দরকার শিশুর বাড়তি যত্ন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের নবজাতক বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. আবদুল মান্নান বলেন, ‘গরমে শিশু অনবরত ঘামে। এই ঘামের ফলে শিশুর শরীর থেকে প্রয়োজনীয় পানি ও লবণ বেরিয়ে যায়। ফলে শিশু পানিশূন্যতাসহ ভাইরাল জ্বর, নিউমোনিয়া, শ্বাসতন্ত্রের সমস্যায় ভুগতে পারে। এই সময়টায় শিশুকে প্রচুর পরিমাণে পানি ও তরল খাওয়ান। যেকোনো সমস্যায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।’

গরমে শিশুর পেট খারাপ হওয়ার শঙ্কাটাও বেশি থাকে। পেট খারাপ হলে অবশ্যই শিশুকে স্যালাইন খাওয়াতে হবে। সঙ্গে ডাবের পানিও দিতে পারেন। এই সময় অন্যান্য তরল খাবারও দেওয়া উচিত। মনে রাখতে হবে, শিশু যেন পানিশূন্যতায় না ভোগে। তার প্রস্রাবের পরিমাণ স্বাভাবিক আছে কি না, খেয়াল রাখতে হবে। শিশুর পায়খানার সঙ্গে যদি রক্ত যায়, তবে অবশ্যই শিশুবিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। ছয় মাস বয়সী শিশুদের জন্য মায়ের বুকের দুধের সঙ্গে পানি ও অন্যান্য খাবারও দিতে হবে।

এই সময়টায় শিশুর শরীরে ঘামাচি ওঠার প্রবণতা থাকে। তাই শিশুকে প্রতিদিন গোসল করিয়ে পরিষ্কার পোশাক পরাতে হবে। ঘামাচির জায়গায় শিশুদের উপযোগী পাউডার লাগান। পাউডার লাগানোর আগে শিশুর শরীর মুছে নিন নরম ভেজা কাপড় দিয়ে। গরমে শিশুকে বেশিক্ষণ ডায়াপার না পরিয়ে রাখাই ভালো।

গরমেই শিশুর ঠান্ডা লাগে বেশি। কারণ অতিরিক্ত ঘাম। ঘেমে গেলে দ্রুত শরীর মুছে দিয়ে কাপড় বদলানো বাধ্যতামূলক। গরমে শিশুকে নিয়মিত গোসল করাতে হবে এবং তাকে সব সময় সুতি কাপড়ে তৈরি পোশাক পরালে আরাম পাবে।

এই গরমে শিশুর চুলেরও বাড়তি যত্ন নিতে হবে। গরমে চুলের গোড়া ঘেমে যায় দ্রুত। সঙ্গে বাতাসে ওড়া ধুলাবালুর কারণে ঘামে ভিজে চুলে জড়িয়ে যায়। এটি নিয়মিত পরিষ্কার না করলে মাথার ত্বকে খুশকি, ঘামাচিসহ নানা ধরনের চর্মরোগ দেখা দিতে পারে। গরমে শিশুর চুল ছেঁটে ছোট করে দিতে পারেন। এক বছর বা তার কম বয়সের শিশুর চুল ফেলেও দিতে পারেন। শিশুর জন্য এই কাজটা মঙ্গলজনকই হবে। বড় চুল হলে নিয়মিত যত্ন নিন। গোসল করার পর চুল ভালোভাবে মুছে নিয়ে আঁচড়ে দিন চিরুনি দিয়ে। এরপর চুল শুকিয়ে গেলে ভালোভাবে বেঁধে দিন। চুল ধোয়ার জন্য শিশুদের উপযোগী শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।

গরমে শিশুর বাড়তি একটুখানি যত্নে পুরো গরমটাই উপভোগ্য হতে পারে। এই সময়ে প্রচুর ফল পাওয়া যায়। মৌসুমি ফল শিশুকে খেতে দিন। ফলে অরুচি থাকলে জুস করে দিতে পারেন। শিশুর পুষ্টি পূরণও হবে। রোগ প্রতিরোধক্ষমতাও বাড়বে।