সৌদি আরবে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উদযাপন | |

সৌদি আরবে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উদযাপন

সৌদি আরবের রিয়াদে উৎসবমুখর পরিবেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপিত হয়েছে। শনিবার সকালে দূতাবাসে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। রিয়াদ দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব (প্রেস) ফখরুল ইসলামের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ দূতাবাস প্রাঙ্গনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। পরে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে প্রদত্ত রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করা হয়। এ সময় দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা, কর্মচারী ও প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে আমরা বাংলাদেশ নামক স্বাধীন রাষ্ট্র পেতাম না। জাতির পিতার অনন্য নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন সম্ভবপর হয়েছিল। তিনি তার জীবন দেশ ও দেশের মানুষের জন্য উৎসর্গ করে গেছেন।

রাষ্ট্রদূত বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম নতুন প্রজন্মের কাছে বেশি করে তুলে ধরার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু সারাজীবন অসহায়, নিপীড়িত, মেহনতি মানুষের পাশে থেকেছেন।

শিশু কিশোরদের বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সাথে পরিচয় করে দেয়ার মাধ্যমে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করার জন্য অভিবাবকদের অনুরোধ জানান রাষ্ট্রদূত। তিনি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ বাস্তবায়নে প্রবাসীদের এগিয়ে আসারও আহ্বান জানান।

আলোচনা অনুষ্ঠানে কমিউনিটির বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানে ব্যবসায়ী, প্রকৌশলী, চিকিৎসকসহ বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি অংশ নেন।

এদিকে, বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে রিয়াদে অবস্থিত স্কুলসমূহের শিক্ষার্থীদের মাঝে চিত্রাঙ্কন, রচনা ও কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেন রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ। এ সময় জাতির পিতা ও তার পরিবারের সদস্যদের জন্য বিশেষ দোয়া ও মোনাজাতের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠান শেষে মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুর ওপর নির্মিত চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

এদিকে, বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল জেদ্দা অনুরুপ কর্মসূচির মাধ্যমে দিবসটি পালন করে।