উৎসাহ-উদ্দীপনায় সরস্বতী পূজা উদযাপিত | |

উৎসাহ-উদ্দীপনায় সরস্বতী পূজা উদযাপিত

প্রতিচ্ছবি রিপোর্টঃ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য আর ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব বাণী অর্চনা, বিদ্যার দেবী শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা উদযাপিত হয়েছে।

বিদ্যাদেবীর কৃপালাভের আশায় সোমবার রাজধানীসহ সারা দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং ঘরে ঘরে এই পূজা উদযাপিত হয়। এছাড়া বিদ্যার এই দেবীকে স্মরণ করেছে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ক্লাবের হিন্দু ধর্মীয় শিক্ষার্থীরা।

মন্দির ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে পূজা ছাড়াও অন্য অনুষ্ঠানমালায় ছিল পুষ্পাঞ্জলি প্রদান, প্রসাদ বিতরণ, ধর্মীয় আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সন্ধ্যা আরতি এবং আলোকসজ্জা।

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম এ প্রধান উৎসবকে ঘিরে সারা দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্যাম্পাসজুড়ে ছিল ধর্মীয় আমেজ। রাজহাঁসে বসে বিদ্যা ও জ্ঞানদাত্রী দেবী আসেন এ দিনেই।

প্রতিবছর মাঘ মাসের শুক্ল পক্ষের পঞ্চমী তিথিতে শ্বেতশুভ্র কল্যাণময়ী বিদ্যাদেবীর আবাহন করা হয়। ঢাক-ঢোল-কাঁসর আর শঙ্খধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের বিভিন্ন পূজামণ্ডপ।

সরস্বতী বিদ্যার ও ললিতকলার অধিষ্ঠাত্রী দেবী হিসেবে পূজিত হন।ঐশ্বর্যদায়িনী, বুদ্ধিদায়িনী, জ্ঞানদায়িনী, সিদ্ধিদায়িনী, মোক্ষদায়িনী এবং শক্তির আধার হিসেবে সরস্বতী দেবীর আরাধনা করা হয়।

প্রতিবছরের মতো এবারো পূজার মূল আকর্ষণ ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল এবং চারুকলা ইন্সটিটিউট। এ বছর হলের মাঠে পৃথকভাবে বিভিন্ন বিভাগের মোট ৬৫টি মণ্ডপে পূজার আয়োজন করা হয়। মণ্ডপগুলোর প্রতিটি প্রতিমা তৈরিতেই ছিল ভিন্নতা।

সকাল সোয়া ৯টায় জগন্নাথ হল মন্দিরে শ্বেতশুভ্র বসনা জ্ঞানদায়িনী দেবী সরস্বতীর পূজা অর্চনার মধ্য দিয়ে এর আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এরপর ভক্তরা পুষ্পাঞ্জলি দিয়ে প্রণাম জানান বিদ্যার দেবী সরস্বতীকে। পরে দেবীর সামনে ‘হাতে খড়ি’ দিয়ে ছোট শিশুদের বিদ্যাচর্চার সূচনা হয়।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হল, বেগম শামসুন্নাহার হল, কুয়েত মৈত্রী হল ও বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল এবং ইডেন কলেজে পৃথক পূজামণ্ডপ তৈরি করা হয়।

এদিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে সরস্বতী পূজা উদযাপিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় সরস্বতী পূজার আয়োজন করা হয়।

এছাড়া রামকৃষ্ণ মিশন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে, ঢাকা মেডিকেল কলেজ, প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা কলেজ, ইডেন কলেজ, শাঁখারীবাজার, তাঁতীবাজার, খিলগাঁও তিলপাপাড়া দেবমন্দিরে কৃপাসংঘসহ বিভিন্ন স্থানে বিপুল উদ্দীপনায় পূজার আয়োজন করা হয়।