চালের দাম ৪০ টাকায় নামিয়ে আনার আশায় মুহিত | |

চালের দাম ৪০ টাকায় নামিয়ে আনার আশায় মুহিত

প্রতিচ্ছবি ডেস্কঃ  আমদানি বাড়িয়ে চালের দাম কেজিপ্রতি ৪০ টাকায় নামিয়ে আনার চেষ্টার কথা বলেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আন্তর্জাতিক কৃষি তহবিলের (ইফাদ) অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী এ কথা বলেন।

গত বোরো মৌসুমে বন্যা ও অতিবৃষ্টিতে ফসলহানির পর চালের দাম হঠাৎ লাফ দেয়। মোটা চাল ৫০ টাকা এবং চিকন চাল কেজিপ্রতি ৭০ টাকা পর্যন্ত উঠে। এরপর সরকার চাল আমদানিতে শুল্ক প্রথমে কমিয়ে ১০ শতাংশ এবং পরে একেবারে তুলে দেয়। এতে চালের দাম কিছুটা কমে আসলেও এখনও গত বছরের তুলনায় অনেক বেশি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘চালের দাম ৪০ টাকার মধ্যে রাখার জন্য আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করে যাচ্ছি। চালের দাম কমানোর জন্য আমরা চাল আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমদানি করা হলে চালের দাম অনেকটাই কমে যাবে।’

চালের দাম বৃদ্ধির জন্য বোরোর ফসলহানির কথা তুলে ধরেন মুহিত। বলেন, ‘এই বছর দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে অসময়ের বন্যায় ব্যাপক ধান নষ্ট হয়েছে। এতে করে বেশি ক্ষতির শিকার হয়েছেন কৃষকরা। এমনকি আমার নির্বাচনী কেন্দ্রের এলাকাতেও বিপুল পরিমাণ ফসলি জমি বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এরই প্রভাবে গত কয়েকমাস যাবৎ চালের দাম ঊর্ধ্বমুখী হয়ে আছে।’

 

চাল নিয়ে এই সংকট সাময়িক জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি অগ্রগতি হয়েছে কৃষি খাতে। ফলে কৃষি নিয়ে আশঙ্কার কিছু নেই।

‘আমাদের কৃষিখাতের সাফল্য বেশি উল্লেখযোগ্য ও দৃশ্যমান। দারিদ্র্য বিমোচন, পুষ্টি ও খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সরকার গুরত্ব সহকারে কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়াও আমরা কৃষিজাত পণ্য উৎপাদন ও বিপণন ত্বরান্বিত করতে আমরা গ্রামীণ মানুষদের জীবন ও জীবিকার উন্নয়নের উপর মনোনিবেশ করছি।’

চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাসে কৃষিজাত পণ্য রপ্তানি করে এক হাজার ৬৫৪ কোটি টাকা আয় হয়েছে বলেও জানান অর্থমন্ত্রী। এটা সরকারের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১৪ দশমিক ১৩ শতাংশ বেশি। অর্থবছরের তুলনায় এই খাতে চলতি বছর ২০ দশমিক ২২ শতাংশ রপ্তানি আয় বেড়েছে বলেও জানান তিনি।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ইফাদের পরিচালক হুনে কিম বলেন, তার সংস্থা ১৯৭৮ সাল থেকে এখন পর্যন্ত ৩২ টি প্রকল্পে ৭১ কোটি ৭২ লাখ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে। আর এই উপকার ভোগ করছে বাংলাদেশের এক কোটি ৭০ লাখ মানুষ।